[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



অাবারো সেই অভিশপ্ত বৃষ্টি…!


প্রকাশিত: March 24, 2015 , 11:38 am | বিভাগ: আন্তর্জাতিক খেলা,আপডেট,বিশ্বকাপ-২০১৫,স্পোর্টস


villiers

স্পোর্টস লাইভ: ১৯৯৯ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের কথা মনে আছে নিশ্চই। বৃষ্টির কারণে কেঁদে কেঁদে বিদায় নিতে হয়েছিল দ. আফ্রিকা। আবারও সেমিফাইনালে বৃষ্টির মুখোমুখি দ. আফ্রিকা। ‘অভিশপ্ত’ বৃষ্টির বাগড়ায় এখন কী করবে দক্ষিণ আফ্রিকানরা? রিজার্ভ ডে পর্যন্ত বৃষ্টি চলতে থাকলে যে শেষ অবধি আবারও কপাল পুড়তে পারে তাদের! এখন বৃষ্টি এখন যেন থেমে যায়- নিশ্চিতভাবেই সে প্রার্থনাই করছে তারা।

নিয়ম অনুযায়ী, মঙ্গলবার বৃষ্টির কারণে যদি দক্ষিণ আফ্রিকাকে আর ব্যাটিং করতে না দেওয়া যায় এবং নিউজিল্যান্ড সর্বোচ্চ ৩৮ ওভার খেলার সুযোগ পায়, তবে তাদের জয়ের লক্ষ্য দাঁড়াবে ২৬৪। নতুবা ম্যাচ গড়াবে রিজার্ভ ডে-তে অর্থাৎ বুধবার (২৫ মার্চ)। রিজার্ভ ডে হওয়ায় দক্ষিণ আফ্রিকা মঙ্গলবার যেখানে ব্যাটিং থামিয়েছে সেখান থেকেই আবার শুরু করবে।

আর যদি বৃষ্টি রিজার্ভ ডে-তেও খেলার সুযোগ না দেয়, তবে গ্রুপ পর্বে শীর্ষে থাকার কারণে নিউজিল্যান্ড পৌঁছে যাবে স্বপ্নের ফাইনালে!

জানা গেছে, দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাওয়ার পর থেকে সেমিফাইনাল খেলেছে ১৯৯২, ১৯৯৯, ২০০৭ বিশ্বকাপে। কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছে ১৯৯৬ ও ২০১১ বিশ্বকাপে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ১৯৯৮ সাল ছাড়া ২০০০, ২০০২, ২০০৪, ২০০৬, ২০০৯ ও ২০১৩ সালে তারা সর্বোচ্চ সেমিফাইনাল খেলেছে। আর ২০০৭, ২০০৯, ২০১০, ২০১২ ও ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে দু’বার তারা ফিরে গেছে সেমিফাইনাল থেকে। বাকি তিনবার বিদায় নিয়েছে সুপার এইট থেকেই।

তাদের বিদায়ের ধরনটাই বেশি আফসোসের, যে কারণে ‘চোকার’ খেতাব পেতে হয়েছে আফ্রিকার সেরাদের।

১৯৯২ সালে প্রথমবার বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া প্রোটিয়াস দলটির ওপর তাদের দুর্দান্ত ফর্মের কারণেই বেশি প্রত্যাশা ছিল। কিন্তু প্রত্যাশার চাপ এতো বেশি ছিল যে, সেমিফাইনাল পর্যন্ত গিয়ে আর সামলাতে না পেরে চাপে ভেঙে পড়ে পুরো দল। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে পাকিস্তানকে ২৪৯ রানে বেঁধে ফেললেও সেই রান সংগ্রহ করতে নেমেই ভালো শুরু করেও ২২৭ রানে গুটিয়ে যায় প্রোটিয়াস ব্যাটিং লাইনআপ। ওই সময় থেকেই প্রোটিয়াদের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয় ‘চোকার’ তকমা।

তবে, ১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেমিফাইনালে দুর্ভাগ্যজনক ড্র করার পর থেকেই দক্ষিণ আফ্রিকার আসল ‘চোকার’ হয়ে ওঠার শুরু।

সর্বশেষ মঙ্গলবারের ম্যাচেও হানা দিয়েছে বৃষ্টি। ওভার কাটছাঁট করে শেষ হলেও দক্ষিণ আফ্রিকানরা তো প্রকৃতিকে দোষ দিতেই পারে, ভিলিয়ার্স যেভাবে ব্যাটিং শুরু করেছিলেন তাতে রান তো ৩২৫-৩৪০ হয়েই যেতে পারতো, যে সংগ্রহ কিউই ব্যাটসম্যানদের চাপে ফেলে দিতো। তাহলে, বৃষ্টি কেন ভিলিয়ার্স-ডু প্লেসিসের যুগল তাণ্ডব সহ্য করতে পারলো না? এ প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। আবারো চোকার তকমাটা কি তাহলে অপেক্ষা করছে দ. আফ্রিকার জন্য।

ঢাকা, ২৪ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন