[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



৫০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে প্রথম পাবিপ্রবির আবিষ্কার


প্রকাশিত: June 18, 2015 , 5:29 pm | বিভাগ: আপডেট,পাবলিক ইউনিভার্সিটি,রাজশাহীর ক্যাম্পাস,রিসার্চ


পাবিপ্রবি লাইভ: শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য খুশির খবর। হুইল চেয়ারকে কন্ট্রোল করতে পারবেন মোবাইল সেট’র মাধ্যমে। এজন্য প্রয়োজন হবে একটি অ্যানড্রয়েড ফোন ও স্মার্ট হুইল চেয়ার।

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) এক ক্ষুদে বিজ্ঞানীর আবিষ্কার এটি।

তার এ প্রজেক্টের নাম ‘অ্যানড্রয়েড ফোন কন্ট্রোল স্মার্ট হুইল চেয়ার ফর ডিজেবিলিটিস’।
ওই ক্ষুদে বিজ্ঞানীর নাম তরুণ দেবনাথ। তিনি পাবিপ্রবির ইনফরমেশন এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র।

বিজ্ঞানী বলেন, ‘এই ধরনের চেয়ার বিদেশ থেকে আমদানি করতে গেলে ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা খরচ হয়। সেখানে আমাদের খরচ হয়েছে মাত্র ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা। দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই প্রজেক্টটি দেশের সাধারণ মানুষের ক্রয়সীমার মধ্যে নিয়ে আসা সম্ভব।’

প্রজেক্টটির সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন পাবিপ্রবির ওই বিভাগের এ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ও বিভাগীয় চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন। এর সুপারভাইজার হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন এ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর আ ফ ম জয়নুল আবেদিন।

ইতোমধ্যে ক্ষুদে বিজ্ঞানীর এ প্রজেক্ট পুরস্কৃতও হয়েছে।

me & samul

জানা গেছে, সম্প্রতি রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের অডিটোরিয়ামে দেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবন নিয়ে দিনব্যাপি আন্তর্জাতিক ইঞ্জিনিয়ারিং ইনোভেশন সামিট অনুষ্ঠিত হয়।

আয়োজনের উদ্যোক্তা ছিল ইঞ্জিনিয়ারিং স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (এসাব)।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন সরকারের বিদ্যুৎ ও জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) কবির বিন আনোয়ার।

উদ্ভাবন মেলায় ‘ইন্টারন্যাশনাল রোবটস গট ফ্রিডোম’ ক্যাটাগরিতে প্রথম স্থান অধিকার করে পাবিপ্রবির ক্ষুদে বিজ্ঞানীর আবিষ্কার ‘অ্যানড্রয়েড ফোন কন্ট্রোল স্মার্ট হুইল চেয়ার ফর ডিজেবিলিটিস’ প্রজেক্ট।

এই হুইল চেয়ারটি মূলত শারীরিক প্রতিবন্ধী এবং পক্ষাঘাতগ্রস্ত ব্যক্তিদের জন্য। স্মার্টফোনের মাধ্যমে এটাকে খুব সহজেই পরিচালনা করা যাবে। চেয়ারে বসে থাকা অবস্থায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার পরিবারের কাছে একটি বার্তা পৌঁছে যাবে। এই ক্যাটাগরিতে আরও অংশ নেয় বুয়েটের ‘মাইন্ড কন্ট্রোল রোবট’, চুয়েটের ‘হিউম্যানয়েড রোবট’সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের চমকপ্রদ সব প্রজেক্ট।

সামিটে রোবট এবং ড্রোন নিয়ে নানা ধরনের প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। সামিটির আয়োজক কমিটির দলনেতা এবং ইঞ্জিনিয়ারিং স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক আরিফ রায়হান বলেন, ‘এবারে সামিট দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বড় আয়োজন।

এতে ৫০টি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ২০টি স্কুল-কলেজের ২০০টি দল তাদের নতুন উদ্ভাবন নিয়ে অংশ নেয়।’

পাবিপ্রবি// এসএস, ১৮জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// এইচএস