[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



যে কারণে সময় চাননি খোকা


প্রকাশিত: June 25, 2015 , 10:39 pm | বিভাগ: আপডেট,ক্রাইম এন্ড 'ল


লাইভ প্রতিবেদক: দুর্নীতির মামলায় সময় চাননি বিএনপি নেতা ও সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা।

তার আইনজীবিরা জানিয়েছেন, নানা কারণে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দুর্নীতির কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে চান বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান খোকাকে। এসব দুর্নীতির সঙ্গে খোকার নূন্যতম সম্পর্ক নেই বলে দাবী করেন তার আইনজীবিরা।

প্রসঙ্গত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানের কারণে তিনি মামলায় হাজির হতে পারেন নি। তাছাড়া তার পক্ষ থেকে কোনো সময়ও আবেদন করা হয়নি। সাদেক হোসেন খোকা বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় জিজ্ঞাসাবাদের কথা থাকলেও তিনি স্বশরীরে হাজির হননি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শেখ আবদুস সালাম এই প্রতিবেদককে জানান, বৃহস্পতিবার দুদকে বিএনপির এই নেতার হাজির হওয়ার কথা থাকলেও তিনি হাজির হননি। কেন কি কারণে আসতে পারেননি তা বাহক মারফতেও দুদককে জানাননি। তবে তিনি সবই জানেন কিন্তু মিডিয়ার সামনে মুখ খুলতে রাজি হন নি।

দুদকের এক কর্মকর্তা বলেন, সাবেক ওই মেয়র  বিদেশে রয়েছেন আমরা জানি। দুদক তদন্তের নিয়ম অনুযায়ী তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নোটিশ দিয়েছে। তিন-চারদিন আগে পাঠানো নোটিশে সাড়া দেওয়া তার পক্ষে সম্ভব নয় এটা আমরাও বুঝতে পারি। কিন্তু তিনি সময়ের আবেদন করতে পারতেন। দেশে তারতো আত্মীয়-স্বজন রয়েছেন।

দোকান বরাদ্দে অনিয়ম ও দুর্নীতির মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খোকাকে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায় হাজির হতে গত ২২ জুন নোটিশ পাঠানো হয়।

বঙ্গবাজার ও ঢাকা ট্রেড সেন্টারের কার পার্কিংয়ের স্থানে এবং খোলা জায়গায় দোকান নির্মাণ ও বরাদ্দে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে সাদেক হোসেন খোকাসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে গত বছরের ২৪ আগস্ট মামলা করে দুদক। দুদকের পক্ষে তখনকার সহকারী পরিচালক মো. মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় মামলাটি করেন।

মামলায় অন্য আসামিরা হলেন- ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সাবেক প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মশিয়ার রহমান, সাবেক সম্পত্তি কর্মকর্তা মহসিন উদ্দিন মোড়ল, অবসরপ্রাপ্ত সম্পত্তি কর্মকর্তা সাহাবুদ্দিন সাবু, সম্পত্তি বিভাগের কানুনগো মোহাম্মদ আলী, সার্ভেয়ার মুহাম্মদ বাচ্চু মিয়া, ফারুক হোসেন এবং মোতালেব হোসেন। মামলার পর এটি তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় দুদকের সহকারী পরিচালক শেখ আবদুস সালামকে।

মামলার অপর আসামি কানুনগো মোহাম্মদ আলী,  সার্ভেয়ার মোতালেব হোসেন এবং ফারুক হোসেনকেও ২৪ জুন সকাল সাড়ে নয়টা থেকে বিকেল তিনটার মধ্যে হাজির হতে বলা হয়।  মোঃ বাচ্চু মিয়া এবং সম্পত্তি কর্মকর্তা মহসিনউদ্দিন মোড়লকে ২৫ জুন সাড়ে দশটার মধ্যে হাজির হতে বলা হয়।

দুদক সূত্র জানায়, অভিযুক্তরা ডিসিসি’র (অবিভক্ত) নীতিমালা লঙ্ঘন করে স্থায়ী মার্কেট দু’টির কার পার্কিং ও খোলা জায়গায় দোকান নির্মাণ করেন ও অস্থায়ীভাবে বরাদ্দ দেন। অভিযুক্তরা পরস্পরের যোগসাজশে জালিয়াতি করে ৪৯৩টি দোকান বিভিন্নজনের কাছে প্রতি বর্গফুট ১৫ টাকা হারে মাসিক ভিত্তিতে বরাদ্দ দিয়েছেন। ডিসিসি’র এস্টেট বিভাগের ২৫২৫ নম্বর নথিতে নোটশিট পরিবর্তন করে আগের সিদ্ধান্ত বাতিল করে দু’টি মার্কেটের মোট ৪৯৩টি দোকান বরাদ্দ দেওয়া হয়।

দুদকের সহকারী পরিচালক শেখ আবদুস সালাম স্বাক্ষরিত নোটিশটি খোকার গোপিবাগ ও গুলশানের বাসায় বাহক মারফতে গেলেও কোন সাড়া মেলেনি।

 ঢাকা// ২৫ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// এইচএস