[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



নোবিপ্রবি শিক্ষার্থী মাহবুব হত্যা: ৮ বছরেও বিচার হয়নি


প্রকাশিত: August 8, 2015 , 7:55 pm | বিভাগ: আপডেট,চট্টগ্রামের ক্যাম্পাস,পাবলিক ইউনিভার্সিটি,ফিচার


nstu1এম এন করিম: আজ ৮ই আগস্ট। মাহবুব হত্যার ৮ বছর পূর্ণ হল। বাবা সিদ্দকুর রহমান ভূঁইয়া (অবসরপ্রাপ্ত) ও মা সুফিয়া খাতুনের উদরে ৩১শে অক্টোবর ১৯৮৫ সালে  জন্ম নেয় এই মাহবুবুর রহমান শোয়েব। তার বাড়ি নেত্রকোনা জেলার নিউটাউন মহল্লায়।

চার ভাইবোনের মধ্যে সে ছিল ৩য়। হাঁটি হাঁটি পা পা করে এইচ এস সি শেষ করে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) ভর্তি পরীক্ষায় সে ৮ম স্থান অধিকার করেন।

ভর্তি হন নোবিপ্রবিতে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ২য় ব্যাচ হিসেবে ফার্মেসী বিভাগে। ২০০৭ সালে জুলাই মাসের ৭ তারিখে  শুরু করে ফার্মাসিস্ট হওয়ার স্বপ্ন যাত্রা। তখনও বিশ্ববিদ্যালয়ে  হল ছিল না। শিক্ষার্থীরা থাকত শিক্ষক ডরমিটরিতে। সে ছিল ৪০৪ নম্বর কক্ষে।

অনেক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে কাটছিল তার বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবন। অল্প সময়ে আপন করে নিচ্ছিল সবাইকে কিন্তু এই স্বপ্ন টেকেনি এক মাসের বেশি। তার অপরাধ ছিল বন্ধুর বিপদে পাশে দাঁড়ানো।

nstu4দিনটি ছিল ৮ই আগস্ট। তার বন্ধু ঝলক, ইশান ও শোভন বিকেলবেলা গিয়েছিলো মাইজদিতে ঘুরতে। সন্ধ্যা ৭টায় ফিরছিল সুগন্ধা নামক গাড়ি করে। মাইজদি থেকে সোনাপুর ভাড়াছিল জন প্রতি ৫ টাকা। সমস্যা সৃষ্টি হল ছাত্র হিসেবে ১৫ টাকার ভাড়া ১০ টাকা দিতে গিয়ে।

ঝলকের সাথে বাস হেলপারের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ঝলককে ধাক্কা দেয় হেলপার। সোনাপুর জিরো পয়েন্ট আসলে শোভন গাড়ী থেকে নেমে যায় কিন্তু ঝলক আর ইশানকে নামতে না দিয়ে সোনাপুর বাস টার্মিনালে নিয়ে যায় হেলপার। তাদের দুজনকে আটকে রাখে সেখানে।

এদিকে শোভন তার বন্ধু কাজলকে বিষয়টি জানালে মাহবুবসহ তারা ৭-৮ জন মিলে বন্ধুকে নিতে বাস টার্মিনালে যাওয়ার সাথে সাথে কয়েকজনকে মারপিট করেন। ফলে, একজন ছাত্র গাড়ির কাঁচ ভাঙ্গায় ৫০-৬০ জন বাস শ্রমিক তাদেরকে লাঠি ও রড দিয়ে আঘাত করতে শুরু করে ফলে ছাত্ররা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

পরবর্তীতে আবার  ৪০-৫০ ছাত্র সংগঠিত হয়ে বাস টার্মিনালে বন্ধুদের আনতে যায় ঠিক তখনই ১০০-১৫০ জন রড, চাপাতি ও ধারালো অস্ত্রদিয়ে ছাত্রদের উপর হামলা করে ফলে ২০ থেকে ৩০ জন ছাত্র আহত হন এদের মধ্যে গুরুতর আহত হন ৩জন। তারা হলেন মহসিন, আকাশ ও সুব্রত মন্ডল। সবাই বাঁচতে পারলেও সেদিন বাস শ্রমিকদের আঘাতে প্রাণ হারান মাহবুব।

mahbubসেদিন মঞ্জুরুল আলম মহসিন দেখেন, পাশে একজনকে ২০-৩০ জন লোক এলোপাথাড়ি ভাবে আঘাতের পর আঘাত করছে। সে শুধু বলছে ‘মাগো আমাকে বাঁচাও’। গাড়িতে তোলার সময় ফায়ার সার্ভিস কর্মী মাহবুবকে মৃত বললেও বিশ্বাস করেনি তার বন্ধুরা।

কিন্তু নোয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে ডাক্তারও তাকে সেই অনাকাঙ্ক্ষিত সংবাদ দেয়। যা শুনে সেদিন ভারী হয়েছিল নোবিপ্রবির আকাশ বাতাস। এভাবে শেষ হয়েছিল এক হবু ফার্মাসীস্ট এর স্বপ্নের আকাশ।

৯আগস্ট ২০০৭ সালে ৯ জনকে আসামী করে শুধারাম থানায় মামলা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিস। পরে পুলিশ তদন্ত করে ২৫ জনের নামে এজাহার ভুক্ত করে। ১৫ জনকে আটক করলেও বর্তমানে জামিনে আছে তারা। এ বিচারের জন্য ২০১০ সাল পর্যন্ত ছাত্ররা বিভিন্নভাবে বিচারের জন্য আন্দোলন করেন।

nstu2শিক্ষার্থীরা তৎকালীন ভিসি প্রফেসর ড.আবুল খায়ের বরাবর স্মারকলিপি দেন যেখানে উল্লেখ থাকে,
১. মাহবুব হত্যার বিচার  ২.মাহবুবের নামে একাডেমিক ভবন বা হল করা ৩.তার বড়ভাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকুরী দেয়া ৪. ৮আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শোকদিবস পালন ও ৫.তার জন্য স্মৃতি জাদুঘর তৈরী।

তিনি পর্যায়ক্রমে দাবি পূরনের আশ্বাস দিলেও তার কোন বাস্তবতা এখনো আসেনি।  বাস মালিক সমিতি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে তার বাবাকে ১লক্ষ টাকা দিলে, তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে তা দান করে দিয়ে যান। বিচারের অগ্রগতির বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিস তেমন কোন তথ্যদিতে পারেনি।

nstu3এদিকে বিচারের ব্যাপারে জানতে চাইলে, বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন উপদেষ্টা ও নোয়াখালী বার অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র আইনজীবী মো: হাবিবুর রাছুল মামুন জানান, মামলার যারা সাক্ষী ছিল তারা পড়ালেখা শেষ করে এখান থেকে চলে যাওয়ায় আমরা তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারছিনা।  ফলে সাক্ষীর অভাবে মামলার বিচার বিলম্ব হচ্ছে।

nstuএদিকে তার বন্ধুরা বলছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তরিকতার অভাবে বিচার বিলম্ব হচ্ছে। আদৌ বিচারের মুখ দেখবে কিনা এই মামলা এই শংকায় আছে শিক্ষার্থীরা ও মাহবুবের পরিবার।

অপরদিকে তার পরিবারের দাবি, যাই হোক না কেন তাদের সন্তান হত্যার সুষ্ঠু যেন হয়।  এভাবে যেন আর কোন মায়ের বুক খালি না হয়। এখন নোবিপ্রবির সবার একটাই বক্তব্য, এভাবে বাস শ্রমিক নামে হায়েনাদের বিচার কি কোনদিন হবে?  নাকি এভাবে আরো মাহবুবদের অকালে জীবন দিতে হবে।

নোবিপ্রবি// এনকে, ০৮ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// জেআর