[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



জাপানের সাগর তীরে যেভাবে সময় কাটলো


প্রকাশিত: August 12, 2015 , 6:15 pm | বিভাগ: আপডেট,ফিচার


japan মো.ফারহান ফেরদৌস, জাপান থেকে: উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার জন্য জাপান এসেছি। বেশ কয়েকমাস হলো। এরই মধ্যেই বিভিন্ন উপলক্ষে তিনবার গিয়েছি জাপান সাগর দেখতে।

যখন প্রথমবার জাপান সাগরে গিয়েছিলাম তখন খুবই ঠান্ডা ছিল। রাস্তার চারিদিকে ছিলো বরফে ঢাকা। একবার আমাদের ইউনিভার্সিটির নবীন ছাত্র-ছাত্রীদের উপলক্ষে আয়োজিত এক শিক্ষা সফরে জাপান সাগরে যাওয়া হয়েছিল।

japan4এটাই ছিল আমার জীবনের অন্যতম স্বরনীয় দিন। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নটো ইয়োট সেন্টার, যেখানে আমরা রাত্রী যাপন করেছিলাম, সেটার দূরত্ব ছিল প্রায় ৯০ কিলোমিটার। সেখানে পৌঁছাতে বাসে সময় লেগেছিলো প্রায় ১ ঘন্টা।

আমাদের সফরটি ছিল দুই দিনের। প্রথম দিনে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন ছিল। দ্বিতীয় দিনে ভোর ৬টায় জাপান সাগরে যাওয়ার কর্মসূচি ছিল। জাপানীরা সময়ের প্রতি খুবই সচেতন, তাই ঠিক ভোর ৬টার মধ্যে নাস্তা শেষ করে হেঁটে জাপান সাগরের উদ্দেশ্যে রওনা হলাম।

japan5আমরা জাপান সাগরে প্রায় ৪০ মিনিট হেঁটে পৌঁছালাম। আমরা সর্বমোট প্রায় ১০০জন ছিলাম। জাপান সাগরের দিকে যেতে যেতে চারদিকে অপূর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য লক্ষ্য করলাম। সেখানে বেশ কিছু ছবিও তুলেছিলাম।

সাগরে যাওয়ার অন্যতম কর্মসূচির মধ্যে ছিল সাগরের বড় জালের মাধ্যমে মাছ ধরা। সেই জন্য আগে থেকেই সরকারকে নির্দিষ্ট ফি জমা দিয়ে অনুমতি নেয়া হয়েছিল। সাগরের বালি ছিল অনেক ঠান্ডা, যা খালি পায়ে হেটে অনুভব করেছিলাম।

japan1প্রথমে সাগরের নিয়োজিত কর্মচারীদেরকে অনুমতির কাগজ দেখাতে হয়েছিল, পরবর্তীতে তারা আমাদেরকে মাছ ধরার ব্যবস্থা ও সাহায্য করে। আমাদের সাথে জাপানীজ, আমেরিকান, আফ্রিকান, পাকিস্তানি, নেপালি, মালেশিয়ান, বাংলাদেশী প্রভৃতি দেশের শিক্ষার্থীরা ছিল।

japan3আমরা অর্ধেক লোক একপাশে এবং বাকী অর্ধেক লোক অন্যপাশে দড়ি টেনে বড় জাল দিয়ে মাছ ধরেছিলাম। সাগরের মাঝে প্লাস্টিক জাতীয় ভাসমান জিনিস দেখে অনুমান করেছিলাম কোন দিকে জালে দড়ি বেশী কম টানা হয়েছে।

japan6যখন আমরা মাছ ধরা জাল নিয়ে সাগরের তীরে উঠলাম তখন লক্ষ্য করলাম এর ভিতর বেশ কিছু মাছ ও অনেক কাঁকড়া ধরা পড়েছে।

জাপানিরা কাঁকড়া দেখে খুবই খুশি হয়েছিল কারণ এটি তাদের অন্যতম প্রিয় খাদ্য। এছাড়াও এমন একটি মাছ জালে ধরা পড়েছিল যার চোখ দুটি বেশ বড় ছিল। মাছটিও খুব একটা ছোট ছিল না। পরে মাছ ও কাঁকড়াগুলো আমাদের সাথে করে নিয়ে যাওয়া নিদির্ষ্ট বাক্সের ভিতরে সংরক্ষণ করেছিলাম।

japan2অবশেষে মাছ ধরে ও সাগর তীরে ঘুরে-বেরিয়ে আমাদের শিক্ষা সফরের শেষ দিনটি অতিবাহিত করলাম। এরপর আমাদের নির্দিষ্ট গন্তব্যের দিকে রওনা দিলাম। জাপান সাগরের এমন অপূর্ব দৃশ্য ও স্মৃতি আজও আমার মনকে জাগরিত করে।

-মো.ফারহান ফেরদৌস, শিক্ষার্থী
এমএসসি এন্ড পিএইচডি ইন রোবটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং
জাপান অ্যাডভান্সড ইন্সটিটিউট অব সাইন্স এন্ড টেকনোলজি

ঢাকা// ১২ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// জেআর