[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



শিক্ষার গলায় ফাঁস!


প্রকাশিত: October 24, 2015 , 10:53 pm | বিভাগ: অপিনিয়ন,আপডেট,সিলেটের ক্যাম্পাস


সাঈদ সাজ্জাদ জেরিস: শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। দেশ, জাতি, সমাজের উন্নতির পথে শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। বিশ্বের সব দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় ৩টি প্রধান স্তর হচ্ছে- প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা। প্রাথমিক শিক্ষা উপরের দুই স্তরের শিক্ষার ভিত রচনা করে। এই স্তর কতটা মজভুত হওয়া প্রয়োজন তা সকলেই জানি।

 

এখন আসি কাজের কথায়। আমাদের দেশের ছাত্রছাত্রীদের জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষা। ‘প্রশ্ন ফাঁস’ এইসব জিনিস এই বয়সের শিশুদের মনে আসবে না, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বর্তমানে যে হারে প্রশ্ন ফাঁস হচ্ছে তাতে দেখা যাচ্ছে, অনেক কোমলমতি শিশুরা এই বয়স থেকেই অনুধাবন করতে পারছে যে ‘ পড়ে কি হবে, প্রশ্ন তো পাবই’। এর প্রভাব পরবর্তী শিক্ষা জীবনে পরতে বাধ্য।

 

এর মূল সমস্যা আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায়। এখানে শিক্ষক ও অভিভাবকরা মনে করেন- ছেলে-মেয়েরা জিপিএ-৫ পেলেই হল। কিন্তু তারা কতটুকু শিখছে, তাতে নজর নেই। এর ফলাফল কী হতে পারে, তা আমি নিজের বাস্তব জীবনেই টের পেয়েছি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায়।

 

আমারই পাশে অনেককে দেখেছি প্রশ্নপত্র দিয়ে মেরিট লিস্টে টিকতে। তখন মনে হয়েছিল আমাদের মত ছাত্ররা কি পরিশ্রম-মেধা দিয়ে চান্স পাবে না? এক বুক হতাশা নেমে আসছিলো। যদিও আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে হয়ে গেছে। আমি জিপিএ-৫ পাইনি এসএসসি, এইচ এসসি কোনটাতেই। তখন সমাজের কিছু কতিপয় সুশীল ব্যক্তিরা কি রকম কথার আক্রমণ চালিয়েছেন, তা আর নাইবা বললাম। আপনারা বলতে পারেন, তাহলে কি ভালো ফলাফল চাইব না?

 

হ্যাঁ, অবশ্যই ভালো ফলাফল চাইবেন; কিন্তু জিপিএ-৫ পাওয়ার জন্য প্রশ্নপত্র ফাঁসের পেছনে কেনো দৌড়াবেন? কেনো গাইড-কোচিং ব্যবসায় নিজের সময় নষ্ট করবেন? স্বাভাবিকভাবে নতুন নতুন পাঠ্য বিষয় পড়ে গেলেই তো ভালো ফলাফল করার কথা।

 

প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার কষ্টে জনপ্রিয় লেখক ও শিক্ষক মুহম্মদ জাফর ইকবাল স্যার বলেছিলেন , ‘দোহাই, আমাদের শিশুদের ক্রিমিনাল বানাবেন না’। স্যারের কথা থেকে স্পষ্টতই স্যারের প্রকৃত শিক্ষার প্রতি পরম অনুরাগ প্রকাশ পেয়েছে। প্রশ্নপত্র ফাঁস হলে শিক্ষার্থীদের যে অপূরণীয় ক্ষতি হয়, তা পরম সততা ও নিষ্টার সাথে এবং পবিত্র চিন্তা করে কাজ করলে আমার মনে হয় কাজটি সহজ হবে।

 

পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে কী কী পরিকল্পনা ও পদক্ষেপ নেয়া যায়? প্রশ্নপত্র ফাঁস হলে কোন পয়েন্টে কার মাধ্যমে হয়েছে, তা বিচার বিভাগীয় তদন্তে উদ্ঘাটন করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করলে পরবর্তীতে কেউ এই কাজে নিজেকে জড়ানোর আগে দুইবার ভাববে।

 

বর্তমানে ফেসবুক, ই-মেইল, মেসেজিং প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার অন্যতম কারণ বলে ধরা হয়। কম্পিউটার কম্পোজার, ট্রেজারির পাহারাদার যদি প্রশ্নপত্র ফাঁসের প্রাথমিক ধাপ হিসেবে ব্যবহৃত হয়, তাহলেই এইসব মাধ্যম ব্যবহৃত হয় বন্ধ করা যেতে পারে, অন্যথায় নয়।

 

অনুসরণীয়-অনুকরণীয় জীবিত মডেলের অভাব আমাদের জাতির জন্য চরম দুর্ভাগ্য। তাই প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধে যা যা করা প্রয়োজন তা করুন। দেখবেন তখন আর ঢাকঢোল পিটিয়ে জিপিএ-৫ এর মর্ম বুঝাতে হবে না।
লেখক: ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
সিলেট।
শাবি// ২৪ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// এইচএস