[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



যে সমুদ্র, কানন আর ঐতিহ্য ছুঁয়েছে হৃদয়


প্রকাশিত: October 30, 2015 , 6:52 pm | বিভাগ: আপডেট,চট্টগ্রামের ক্যাম্পাস,ট্যুরিজম এন্ড এনভায়রনমেন্ট,পাবলিক ইউনিভার্সিটি


IMG_20151027_172932হাফিজ উল্লাহ্‌ শামীম: শিক্ষা সফর। উদ্দেশ্য সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটা, আউলিয়াদের তীর্থ ভূমি বাগেরহাট আর প্রকৃতির কানন সুন্দরবন। নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) ইংরেজি বিভাগের ১ম ব্যাচের শিক্ষার্থী সবাই। সঙ্গে বিভাগের শিক্ষকরাও। সত্যি সে এক অব্যক্ত অনুভুতি মিশ্রিত ভালোলাগা। হৃদয় পটে যে স্মৃতি লেপ্টে গেছে সারা জীবনের তরে।

 

গত ২৪ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর। টানা ৫দিনের সফরে নোবিপ্রবির ইংরেজি বিভাগের ১ম ব্যাচের আমরা ৪২জন। সেইসাথে ৩জন শিক্ষক। সবাইকে নিয়ে ১টি বাস সাগরকন্যা কুয়াকাটার উদ্দেশ্য যাত্রা শুরু করে ২৪ অক্টোবর। অ্যাকাডেমিক ব্যস্ততাকে পেছনে ফেলে বিনোদনের পাশাপাশি নতুন কিছু শেখা এই শিক্ষা সফরের প্রধান উদ্দেশ্য।

 

IMG_20151026_061415কুয়াকাটায় সূর্য উদয় ও অস্তের অপূর্ব দৃশ্য শিক্ষার্থীদের সবচেয়ে বেশি মুগ্ধ করেছে। সেইসাথে সমুদ্র লোনাজলে গা ভেজানোর স্মৃতি। ২৫ ও ২৬ সেপ্টেম্বর পুরো দুটি দিন কেটেছে কুয়াকাটায় ঘোরাঘুরি আর সমুদ্র জলে খেলা করে।মন না চাইলেও ফিরতে হয়েছে এমন দৃশ্য পিছনে ফেলে নতুন দিগন্ত পানে।

 

২৭ সেপ্টেম্বর সকালে ঐতিহাসিক ষাটগম্বুজ মসজিদের উদ্দেশ্য কুয়াকাটা ত্যাগ। সেখানে খান জাহান আলীর স্মৃতি বিজড়িত প্রাচীন মসজিদটির শিল্পকর্ম ষাটগম্বুজ মসজিদ সবাইকে আলোড়িত করে। ছোটবেলায় বই-পুস্তকে পড়া স্থানটিকে নিজের সামনে দেখতে পেয়ে অনেকে আনন্দে আত্মহারা হয়ে যান। বিকেলের ঘোরাঘুরি শেষে বাগেরহাট থেকে খুলনার উদ্দেশ্যে বাস যাত্রা।

 

IMG_20151028_134019পরদিন (২৮ অক্টোবর) সকালে নিজেদেরকে সুন্দরবনের অপরূপ সৌন্দর্যের মাঝে সমর্পণের পালা। আঁকাবাঁকা নদীতে ট্রলারে চড়ে শিক্ষার্থীদের ঝুলিতে নতুন অভিজ্ঞতা। নদীর বুক চিরে ছুটে চলা ট্রলার, সুন্দরবনের লোনাপানি আর প্রকৃতির অপরূপ মেলবন্ধন সবাইকে আলোড়িত করে। সুন্দরবন গিয়ে দেখা হল করমজল ও হাড়রাড়িয়া। সেখানে প্রকৃতির সাথে সাক্ষাত হয় একেবারে কাছ থেকে। ট্রলারে করে ফের মংলায় ফিরে সবাই হোটেলের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন।

 

ট্রলারে কিংবা বাসে সব জায়গাতেই চলে সুরে-বেসুরে গলাচেড়া গান। আবার কেউ কেউ নিজেদের ভাসিয়ে দেন উন্মাদ নৃত্যে। পাশাপাশি চলতে থাকে ব্যাচেলর শিক্ষকদের নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের নানা রকম খুনসুটি।
২৯ অক্টোবর বিকেলে হোটেলের নাস্তা সেরে পুরো দলটি নোয়াখালীর উদ্দেশ্যে বাসে চাপে। সমুদ্র, ঐতিহ্য ও অরণ্য ছেড়ে সবাই ফিরে আসে সেই নিয়ম বাধা জীবনে।

লেখক: শিক্ষার্থী ও সাংবাদিক
১ম ব্যাচ, ইংরেজি বিভাগ
নোবিপ্রবি

 

নোবিপ্রবি// ৩০ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// এইচএস