[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



ব্রেক-আপের পর ভুলেও যা করতে নেই


প্রকাশিত: February 6, 2016 , 12:50 pm | বিভাগ: ইয়াং স্টাইল


লাইভ প্রতিবেদক: সম্পর্ক থাকলে তা ভাঙার আশঙ্কাও থাকে। একটা সম্পর্ক ভাঙার পরে কম-বেশি খারাপ সময়ের মুখোমুখি হন সবাই। কিন্তু, সময় খারাপ বলেই তো যা খুশি করা যায় না। দেখে নিন এমনই ১০টি ভুল পদক্ষেপ যা, কখনওই একটি সম্পর্ক ভাঙার পরে করা উচিত নয়।

১। দেখাতে চেষ্টা করবেন না যে আপনি ভালো আছেন। চিৎকার করে কাঁদতে পারেন, বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলতে পারেন। এই সময়ে আপনি যে খারাপ থাকবেন, সেটাই তো স্বাভাবিক।

২। ‘আমরা এখন জাস্ট ফ্রেন্ডস’— এই গোছের কোনোও মধ্যস্থতায় দয়া করে যাবেন না। কারণ, গভীর সম্পর্কে থাকার পরে কখনও সেটিকে শুধু বন্ধুত্বের তকমা দেয়া যায় না। এটা প্রকারান্তরে নিজেকে ঠকানো।

৩। বদলা নেয়ার মানসিকতা থেকে সরে আসুন। বদলা কখনও আপনাকে শান্তি দিতে পারবে না। প্রতিশোধস্পৃহা আপনাকে ভেতর থেকে ভঙ্গুর করে তুলবে। একটা সময়ের পরে অপরাধবোধে ভুগবেন।

image

৪। বন্ধুরা হয়তো বোঝাবে ফোন করতে বা টেক্সট করতে; কিন্তু আপনি তা করবেন না। যদি, সত্যিই ঠিক করে থাকেন, এই সম্পর্কে আর থাকবেন না, তা হলে কোনোভাবেই যোগাযোগ করতে যাবেন না। এতে নিজের হ্যাংলামিটাই প্রকাশ পায়।

৫। ভুল না-করে থাকলে ক্ষমা চাইবেন না। মনে রাখবেন, ক্ষমা চেয়ে কখনও সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা যায় না। যার কাছে অকারণে ক্ষমা চাইতে হয়, তার কাছ থেকে নিঃস্বার্থ ভালোবাসা চাওয়াটা বোকামি ছাড়া আর কিছু নয়।

৬। পুরনো সম্পর্কের টানে হঠাৎ করে দৈহিক সম্পর্কে জড়াবেন না। সম্পর্ক থেকে একবার বেরিয়ে এসে শুধুমাত্র যৌন সম্ভোগের জন্য মিলিত হবেন না। এতে সম্পর্ক কখনওই জোড়া লাগে না, উল্টে সঙ্গীর কাছে খুবই সহজলভ্য হয়ে যাবেন আপনি।

৭। সোশ্যাল মিডিয়া আপনার ব্রেক-আপের ক্ষেত্রে কাটা ঘা-য়ে নুনের ছিটে হতে পারে। দু’টো নিয়ম আপনাকে অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলতেই হবে, যদি সত্যিই সম্পর্কটা ভুলতে চান।

প্রথমত, ফেসবুকে এমন কোনো পোস্ট করবেন না যাতে বোঝা যায় আপনি খারাপ আছেন বা আপনার পার্টনার একটি খারাপ মানুষ। দ্বিতীয়টি হলো, নিয়মিত প্রাক্তন প্রেমিক-প্রেমিকার প্রোফাইল চেক করাকে নিজের অভ্যাসে পরিণত করবেন না।

সে যেখানেই যাক, যার সাথেই সেলফি তুলুক, তাতে আপনার কী? পারলে, আনফ্রেন্ড করুন। ভুলেও ওই প্রোফাইল খুলে দেখবেন না। মনে রাখবেন, আউট অফ সাইট, আউট অফ মাইন্ড।

৮। খারাপ সময়ে নিজেকে খুব বেশি পরিবর্তন করতে যাবেন না। অর্থাৎ, বেমানান একটা হেয়ার কালার, অদ্ভুত এক ট্যাটু বা যে নেশা কোনোদিন করেননি, সেই সব শুরু করবেন না। যা আপনি নন, তা সাজতে চেষ্টা করবেন না প্লিজ। তাতে শেষ পর্যন্ত ভালো থাকবেন না। বরং, একটু খুঁজে দেখার চেষ্টা করুন, আপনার হারিয়ে যাওয়া প্যাশনগুলোকে।

83ed3d3045ea1be441d6e80bbf5e01fa

৯। সব কিছু ছেড়ে সন্ন্যাসী হওয়ার ভাবনা ত্যাগ করুন। নির্লিপ্ত থেকে আপনি নিজে শান্তি পেলেও যারা আপনার খুব কাছের লোকজন, বিশেষত মা-বাবা— তাদের কষ্ট দেয়া হয়।

১০। একটা সম্পর্ক ভেঙে গেছে বলেই আরেকটায় জড়িয়ে পড়ার জন্য কোমর বেঁধে উঠে পড়ে লাগবেন না। এতে ভুল মানুষের সঙ্গে জড়িয়ে পড়া আশঙ্কা থাকে। তাই, নিজেকে সময় দিন। নিজের ভালোলাগাগুলোকে সময় দিন। আর পারলে পরিবারকে সময় দিন। সময় এমন এক ওষুধ যা সব ভুলিয়ে দিতে পারে।

ঢাকা, ০৬ ফেব্রুয়ারি//(ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম)//আরকে