[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



গণবিতে আড্ডায় স্বাধীনতার ভাবনা


প্রকাশিত: March 30, 2016 , 3:46 pm | বিভাগ: আপডেট,ঢাকার ক্যাম্পাস,প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি


12903503_943588739094184_211436324_o

গণবি লাইভ: স্বাধীনতা আমাদের কোটি প্রাণের চাওয়া ছিল। ১৯৭১ সালে ত্রিশ লাখ প্রাণের বিনিময়ে এ কাঙ্ক্ষিত চাওয়ার বাস্তবায়ন ঘটেছে দীর্ঘ নয়মাস যুদ্ধ করার মধ্য দিয়ে।

তবে স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময়ে এই অধরা স্বাধীনতাকে ঘিরে ছিল বাংলার মানুষের নানা স্বপ্ন। এই স্বাধীনতার ৪৫ বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। ৪৫ বছর পর অনেকের মনেই প্রশ্ন জাগতে পারে, আমরা আমাদের স্বপ্নের কতটা পূর্ণতা দিতে পেরেছি। এ নিয়ে নানা মতভেদও তৈরি হতে দেখা যায় নানা জনের মধ্যে।

বছর ঘুরে আবার এলো স্বাধীনতার মাস।  ২৬মার্চ আমাদের মহান স্বাধীনতা দিবস। আর এ মাসে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে লক্ষ্য করা যাচ্ছে স্বাধীনতা দিবসের আবেশ।

নিয়মিত ক্লাস, ক্লাস-টেস্ট, অ্যাসাইনমেন্ট ইত্যাদির মাঝেও অবিরাম বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আড্ডা হয় প্রতিটি ক্যাম্পাসেই কিন্ত স্বাধীনতা নিয়ে আড্ডা খুব কমই চোখে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসগুলোতে।

স্বাধীনতার পর আমরা আসলে কী পেয়েছি আর কী পাইনি এ নিয়ে নতুন প্রজন্মের কয়েকজন বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে সেদিন ক্লাসের ফাকে কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে আলোচনায় মেতেছিলেন সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের একদল তরুণ শিক্ষার্থী।

আইন বিভাগ ১১তম ব্যাচের শিক্ষার্থী এনায়েত উল্লাহ কৌশিক বলেন, আমাদেরকে স্বাধীনতার মূলনীতিগুলো ধরে রেখে এগোতে হবে। তাহলেই স্বাধীনতার প্রকৃত সুফল আমরা পাব। আর প্রত্যেকেই যদি নিজের অবস্থান থেকে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করি তাহলেই স্বাধীনতার মূল সৌন্দর্যে সাজাতে পারব আমাদের দেশ।

ফামের্সী বিভাগের শিক্ষার্থী সারা বেনজীর জানান , আমি মনে করি আমরা সঠিক জায়গাতেই আছি। স্বাধীনতার পরবর্তী সুবিধাগুলো আমরা ঠিকভাবেই পেতে শুরু করেছি।

ফামের্সী শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী সামিয়া ইসলাম উপমা বলেন, স্বাধীনতার পূর্ববর্তী সময়ে আমি ছিলাম না। তবে ইতিহাস থেকে যা জেনেছি তার ভিত্তিতে বলতে পারি আমরা তখনকার সময়ের চেয়ে এখন অনেক ভালো আছি।

একই বিভাগের শিক্ষার্থী দ্বীপ সাহা জানান, আসলে স্বাধীনতার পর আমরা কিছুই পাইনি এই কথার পক্ষে আমি নই। সব কিছুর মধ্যেই কিছু না কিছু অসঙ্গতি থাকবে। পৃথিবীর কোনো কিছুই শতভাগ সফল হয় না। আর আমাদের স্বাধীনতা তো একটা বিশাল ব্যাপার। আমি মনে করি আমরা উন্নতির পথে এগোচ্ছি।

আইন বিভাগের শিক্ষার্থী বিলকিস আক্তার ঐশ্বি বলেন, আমরা যখন দেখি আমাদের ছাত্রদের অধ্যয়নের সঠিক পরিবেশ পাচ্ছে না, তখন আমি কিছুতেই ভাবতে পারি না আমরা কী সত্যিকারের স্বাধীনতা পেয়েছি?

একই বিভাগের শিক্ষার্থী ফারহানা দিলশাদ মৌ জানান, আফসোস! নামে আমরা স্বাধীন হলেও স্বাধীনতার সুফল আমরা অর্জন করতে ব্যর্থ হয়েছি।

ফিজিওথেরাপী বিভাগের শিক্ষার্থী কায়েস আহমেদ জীবন বলেন, মার্চের দিনগুলোতে আমাদের অনেক অর্জন আছে, তার মধ্যে বঙ্গবন্ধু’র ঐতিহাসিক ভাষণ ও ২৬ মার্চে স্বাধীনতার ঘোষণার পর লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের এ দেশ। স্বাধীনতার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের জন্য প্রতি বছর স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়। তাই স্বাধীনতা দিবসের গুরুত্ব সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে।

আইন বিভাগের শিক্ষার্থী মুন্নি আক্তার জানান, ‘স্বাধীনতার ৪৫ বছর পেরিয়ে গেছি আমরা। তারপরও হয়তো সত্যিকারের স্বাধীনতার স্বাদ পেতে আমাদের আরও অনেকদিনের প্রয়োজন হবে।
তবে যে যাই বলুক না কেন সবার প্রত্যাশার জায়গা একটাই। একটি সোনার বাংলাদেশ।’

 

ঢাকা//  এএএ, ৩০ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম) //এএইচবি