[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



মেডিকেল শিক্ষার্থীদের কান্নার আওয়াজ শুনবেন কী প্রধানমন্ত্রী!


প্রকাশিত: June 14, 2016 , 12:11 pm | বিভাগ: অপিনিয়ন,আপডেট


ashulia-medical-live

রাকিবুল ইসলাম : সরকারি সিদ্ধান্তে প্রতারণার অভিযোগে রংপুরের নর্দান মেডিকেল কলেজ, গাজীপুরের সিটি মেডিকেল কলেজ ও আশুলিয়ার নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজের কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাস ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে।

তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক নির্দেশনায় এসব মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের ওই অঞ্চলের অন্যান্য বেসরকারি মেডিকেল কলেজে শিক্ষা কার্যক্রম সম্পন্ন করার সুযোগ দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়।

প্রশ্ন হল, শিক্ষার্থীদের এ ঝক্কি-ঝামেলার জন্য দায়ি কে?
মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ নানা প্রলোভন দেখিয়ে এসব মেডিকেলে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করিয়েছে। এখন তাদের নদীতে ফেলে দেয়া হয়েছে। এখান থেকে সাতরিয়ে যারা ওপরে উঠতে পারবেন তারাই সফলকাম হবে। তবে জলে বড় বড় ঢেউ রয়েছে। রয়েছে কুমিরের মত ভয়ংকর প্রাণী। ওই প্রাণী তাদেরকে যেকোন সময় আক্রমন করতে পারে। এসব প্রতিবন্ধকতা দূর করে তাদের সফল হতে হবে। কিন্তু শিক্ষার্থীরা কী শেষ পর্যন্ত এমন যুদ্ধ জয় করতে পারবে। জল থেকে উঠে তাদের নায্য দাবি আদায়ে সোচ্চার ভূমিকা রাখতে পারবে??? আপাত দৃষ্টিতে তা মনে হচ্ছে না। নর্দান ও সিটি মেডিকেলের শিক্ষার্থীরা এ মুহুর্তে কোন প্রতিক্রিয়া দেখায়নি।

তবে নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা প্রতিক্রিয়া দেখাতে গিয়ে বড় বড় ঢেউ আর কুমিরের মুখোমুখি হয়েছে। হিংস্র কুমিরের হামলায় ক্ষত-বিক্ষত হয়েছে তারা। কোনমতে তীরে উঠে প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন তারা। তবে তাদের কান্না দেখার কেউ নেই।

জানা গেছে, মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৬টার দিকে হঠাৎ করেই নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের ওপর চড়াও হয় পুলিশ। পুলিশ সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে শিক্ষার্থীদের পিটিয়ে তাদের ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়। এসময় অবরুদ্ধ করে রাখা প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হুমায়ুন জামান চৌধুরীকে উদ্ধার করে পুলিশ।

জানা গেছে, মেডিকেল বন্ধের সিদ্ধান্তে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েন ভিনদেশ, বিশেষ করে ভারত আর নেপাল থেকে পড়তে আসা শিক্ষার্থীরা। ক্যাম্পাস খালি করে দেয়ায় এখন তারা কোথায় যাবে। তাদের নিরাপত্তাই বা কি এসব প্রশ্ন নিয়েই ক্ষুব্দ ভিনদেশি শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, হাসপাতালে ইনডোর বা আউটডোরে কোনো রোগী নেই। সরকারি কোনো মন্ত্রণালয় থেকে কোনো কর্মকর্তা আসলে ভাড়া করে রোগী আনা হয়।

তাদের শিক্ষা জীবন যাতে নষ্ট না হয় তাই সরকারের কাছে সমাধান চান তারা।

শিক্ষার্থীদের আকুতি কী রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ প্রশাসনের কানে পৌঁছবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কী তাদের প্রতি সহমর্মী হবেন। আমরা চাই এর সহজ সমাধান। আমরা চাই শিক্ষার্থীদের জীবন যাতে নষ্ট না হয়। শিক্ষার্থী নয় মেডিকেল কর্তৃপক্ষের শাস্তি চাই। যেন তারা আর কোন শিক্ষার্থীর জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে না পারে।

 

 

রাকিবুল ইসলাম
মেডিকেল কলেজের ছাত্র

 

 

ঢাকা, ১৪ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন