[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



একাদশে পছন্দের শীর্ষে রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ


প্রকাশিত: June 19, 2016 , 9:23 pm | বিভাগ: আপডেট,এডমিশন,কলেজ


HSC-admission

লাইভ প্রতিবেদক: একাদশ শ্রেণির ভর্তিতে গত বছরের মতো পছন্দের শীর্ষ প্রতিষ্ঠান হিসেবে সারাদেশে সর্বাধিক সংখ্যক শিক্ষার্থীর পছন্দের প্রতিষ্ঠান রাজধানীর রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ।

ভর্তি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছ থেকে পাওয়া তালিকা থেকে পাঠকদের জন্য ২০টি কলেজের আবেদন সংখ্যা ও অবস্থান বিশ্লেষণ দেখা যায়, রাজউক কলেজে সর্বাধিক ৩২ হাজার ৭৫০ জন আবেদন করেছে।

২য় সর্বোচ্চ ঢাকা সিটি কলেজ ৩১ হাজার ৯৬১টি আবেদন। ৩০ হাজার ৫৮টি আবেদন নিয়ে ৩য় অবস্থানে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ, চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজ ২৯ হাজার ৮৬২ আবেদন নিয়ে ৪র্থ। ৫ম অবস্থানে সরকারি বাঙলা কলেজ, ৬ষ্ঠ অবস্থানে কবি নজরুল সরকারি কলেজ, ৭ম বি এ এফ শাহীন কলেজ (তেজগাঁও), ৮ম ঢাকা কলেজ, ৯ম রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ, ১০ম ঢাকার সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ।

১১তম অবস্থানে রয়েছে রাজশাহী সরকারি সিটি কলেজ। এরপর ১২তম চিটাগংয়ের ওমরগণি এম ই এস কলেজ, ১৩তম বি এ এফ শাহীন কলেজ (কুর্মিটোলা), ১৪তম নিউ গভ: ডিগ্রি কলেজ রাজশাহী, ১৫তম চট্টগ্রামের হাজী মুহম্মদ মহসীন কলেজ, ১৬তম সরকারি আনন্দমোহন কলেজ, ১৭তম রাজশাহী কলেজ, ১৮তম বীরশ্রেষ্ঠ নুর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজ, ১৯তম ময়মনসিংহের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজ ও ২০তম নারায়ণগঞ্জের সরকারি তোলারাম কলেজ।

এদিকে, একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীরা শনিবার ভর্তি হতে শুরু করেছে। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য তারা ২২ জুন পর্যন্ত সময় পাবে। এরপর ২৫ জুন থেকে ২৭ জুন পর্যন্ত অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ভর্তির কার্যক্রম শুরু হবে।

তবে শনিবার ১ম দিনে কোনো কোনো কলেজে গিয়ে দেখা গেছে, কম শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে।

দুপুরের পর রাজধানীর সরকারি বিজ্ঞান কলেজে গিয়ে দেখা গেছে, ভর্তি হতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি একেবারেই কম।

এই কলেজের ভর্তি কমিটির আহ্বায়ক মঈনুল ইসলাম জানান, বেলা ৩টা পর্যন্ত মাত্র ৪০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। অথচ কলেজটিতে আসন ১ হাজার ২০০, যার প্রতিটির বিপরীতে মেধাক্রম করে দেয়া হয়েছে।

ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের একাধিক কর্মকর্তা ও ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এবারে একেকজন শিক্ষার্থী সর্বোচ্চ ২০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে (অনলাইনে ১০ ও মুঠোফোনে খুদেবার্তায় ১০) ভর্তির জন্য আবেদনের সুযোগ পেয়েছে। আবেদনকারীদের প্রত্যেকের মেধাতালিকা ও অপেক্ষমাণ তালিকা করা হয়েছে।

এ জন্য দেখা গেছে, একজন শিক্ষার্থী একাধিক কলেজেও মনোনীত হয়েছে। আর এ কারণেই প্রথম দিনে অনেকে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগে ভর্তি হয়নি।

ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক আশফাকুস সালেহীন জানান, অনেক শিক্ষার্থী কয়েকটি করে কলেজে মনোনীত হওয়ায় তার চেয়ে তুলনামূলক খারাপ ফলের শিক্ষার্থীরা অপেক্ষমাণ তালিকায় পড়েছে। এ জন্য নিয়মিত ভর্তির পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শূন্য আসনের বিপরীতে অপেক্ষমাণ তালিকার মেধাক্রম অনুযায়ী ভর্তি করা হবে।

 

ঢাকা, ১৯ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এএইচ