[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



আমজাদ খান চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী আজ


প্রকাশিত: July 8, 2016 , 9:20 pm | বিভাগ: ইভেন্ট


pic 5

লাইভ প্রতিবেদক: আমজাদ খান চৌধুরী। একটি নাম। এক শিল্প আন্দেলনের প্রতিকৃতি। প্রবাদ পুরুষ। লক্ষ কোটি মানুষ আর মানবতার প্রাণ প্রিয় বন্ধু। এদেশের অন্যতম পরিবার প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা। প্রধান নির্বাহী হিসেবে যার নাম আজও হাজার হাজার কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের কাছে স্মৃতির আয়নায় জায়গা করে আছেন।

৮ জুলাই ২০১৫ বুধবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭ টা ১৫ মিনিটে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনায় ডিউক মেডিকেল হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। স্ত্রী, ২ ছেলে, ২ মেয়ে ও নাতি-নাতনীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী তিনি রেখে গেছেন।
সেই মেজর জেনারেল (অব.) আমজাদ খান চৌধুরীর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের প্রধান কার্যালয়সহ ও বিভিন্ন কল-কারখানায় বিশেষ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

একনজরে আমজাদ খান: আমজাদ খান চৌধুরী ১৯৩৯ সালের ১০ নভেম্বর উত্তরবঙ্গের নাটোর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম আলী কাশেম খান চৌধুরী। আমজাদ খান চৌধুরী শিক্ষা জীবন শুরু করেন ঢাকায়। রাজধানীর পুরান ঢাকার নবকুমার ইনস্টিটিউট থেকে তিনি শিক্ষা জীবন শুরু করেন।  গ্র্যাজুয়েশন করেন পাকিস্তান মিলিটারি একাডেমি ও অস্ট্রেলিয়ান স্টাফ কলেজ থেকে। সাদামাটা জীবন যাপন করতেন তিনি।

ইন্টার পাশের পর ১৯৫৬ সালে তিনি সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন। পরবর্তীতে অস্ট্রেলিয়ান স্টাফ কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেন। কর্মজীবনে তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী থেকে অবসর নিয়ে ব্যববসায় মনোনিবেশ করেন।

আমজাদ খান চৌধুরী রংপুর ফাউন্ড্রি লিমিটেড (আরএফএল) প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের যাত্রা শুরু করেন ছোট্র পরিসরে। ‘দারিদ্র্য ও ক্ষুধা জীবনের অভিশাপ।

প্রাণ-আরএফএলের লক্ষ্য: লাভজনক ব্যবসায়িক কার্যক্রমের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টিপূর্বক মানুষের মর্যাদা ও আত্মসম্মান বৃদ্ধি করা’। এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে তার ব্যবসায়িক কার্যক্রমের যাত্রা শুরু করেন।

আমজাদ খান চৌধুরীর কৃতিত্ব: ব্যবসায় ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য মেজর জেনারেল আমজাদ খান চৌধুরী ২০১০ সালে ডিএইচএল – দ্যা ডেইলি স্টার – বাংলাদেশ বিজনেস অ্যাওয়ার্ড ‘বিজনেস পারসন অব দি ইয়ার’ হিসেবে পুরস্কৃত হন।

প্রাণ-আরএফএল দেশের শীর্ষস্থানীয় খাদ্য ও প্লাস্টিক পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। এই গ্রুপে বর্তমানে সরাসরি কর্মরত রয়েছে ৮০ হাজারের অধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী। বিশ্বের ১৩০টি দেশে নিয়মিত রফতানি হচ্ছে প্রাণ-আরএফএল এর পণ্য। রফতানি ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘প্রাণ’ পরপর ১০ বছর জাতীয় রফতানি ট্রফি এবং ২০১১ সালে এইচএসবিসি এক্সপোর্ট এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে।

আমজাদ খান চৌধুরী বাণিজ্যিক সংগঠন যেমন- মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই), ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিইসি), ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড (আইডিসিওএল), বাংলাদেশ ডেইরি অ্যাসোসিয়েশনসহ বিভিন্ন সংগঠনের সভাপতি, পরিচালকসহ বিভিন্ন পদে সফলতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেগেছেন।

এছাড়াও তিনি রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব), বাংলাদেশ এগ্রো প্রসেসরস অ্যাসোসিয়েশন (বাপা), আন্ডারপ্রিভিলেজড চিলড্রেন্স এডুকেশন প্রোগ্রাম (ইউসেপ) প্রভৃতি সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন।

আমজাদ খান চৌধুরী কৃষি ও কৃষিজাত পণ্যের বহুমূখী ব্যবহার এবং এ শিল্পের মাধ্যমে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে অগ্রণী ব্যক্তিত্ব জননন্দিত ব্যক্ত্বি হিসেবে অধিক পরিচিত লাভ করেন।

 
ঢাকা, ০৮ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএইচ এন