[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



বিসিএসে চান্স : মলিন শার্টের গল্পটা শেষ, শুরু নতুন স্বপ্নের


প্রকাশিত: August 11, 2016 , 7:23 am | বিভাগ: আপডেট,ফিচার


cu-live-cycle

আরাফাত আবদুল্লাহ : জীবনের প্রথম বিসিএস পরীক্ষা দেয়ার সময় আরিফ ফর্ম ফিলাপের টাকাটা পর্যন্ত পায়নি। টাকা ধার করতে হয়েছে বন্ধুর থেকে। চারটে টিউশনি করাতো। প্রায় সব টাকা খরচ হতো পরিবার আর বাবার পেছনে। দুরারোগ্য ব্যাধিগস্থ বাবার ওষুধের পেছনেই খরচ হতো মোটা অংকের টাকা। বিসিএসের নতুন বই কেনা দূরে থাক। সস্তায় পুরনো বই কিনবে সেই সংগতিটা পর্যন্ত ছিল না। ফর্ম ফিলাপতো আরো পরের কথা।

এরপরেও ছেলেটা হাল ছাড়েনি। টিউশনির পর বাকি সময়টা দিয়েছে পড়ার টেবিলে। বই কিনতে পারেন নি , কিন্তু ধার করে বই পড়তে অসুবিধা কোথায়?? সেটাই করেছে ছেলেটা।

ওর খুব মনে আছে অনার্স ফাইনাল ইয়ারের ভাইভা দিতে গিয়ে কি বিড়ম্বনার মাঝেই না পড়েছিল। মলিন, কুচকানো ফর্মাল শার্টটার দিকে স্যাররা এমনভাবে তাকাচ্ছিলেন যেন মনে হচ্ছিল ছেলেটা ভাইভা দিতে আসেনি। মলিন, কুচকানো শার্টের ব্রান্ড এম্বাসেডর হয়ে এসেছে। খুব লজ্জা পেয়েছিল সেদিন।

মনটা ভেঙ্গে গিয়েছিল সেদিন যেদিন কিনা একজন গারডিয়ান মুখের উপর বলে দিলেন, আগামীকাল থেকে তোমার আসা লাগবে না। আমরা নতুন টিচার দেখবো। একটি টিউশনি চলে যাওয়া মানে নতুন করে টাকার সংকট তৈরি হওয়া। নতুন করে যুদ্ধ শুরু হওয়া। বাড়িতে মা টাকার জন্য অপেক্ষা করে। ছেলে টাকা পাঠালে তবেই সংসার চলবে।

জীবনের গল্পটা একটা মলিন কুচকানো শার্টের থেকেও আরো কঠিন। সেখানে চুপ করে বসে থাকলে হয় না। কাজ করতে হয়। এই ছেলেটাও কাজে নেমে পড়লো।

টিউশনি নাই, তাতে কি হয়েছে ?? পার্ট টাইম জবতো আছে। একটা পোশাকের দোকানে পার্ট টাইম জব নিয়ে নিলো। সেলারি মোটামুটি। জবের ফাকে ফাঁকে চলল পড়াশোনা।

একদিন মলিন শার্টের গল্পটা শেষ হয়। শেষ হয় টিউশনি থেকে খালি হাতে ফিরে আসার গল্পটা। প্রথমবার বিসিএস টা হয় নি। দ্বিতীয়বার হয়েছে। জীবনের এতোগুলো ধাপ পার করে আসার পর ছেলেটা বুঝতে পারলো কষ্টটা বৃথা যায়নি। বিধাতা কষ্টের প্রতিদান দিয়েছেন। বহুগুণে দান করেছেন। এখন নতুন গল্প শুরু হয়েছে।

সেখানে না আছে কোন মলিন শার্টের গল্প।
না আছে কষ্ট করে বই ধার করার গল্প।

 

Arafat Abdullah
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

 

ঢাকা, ১০ আগস্ট(ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন