[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



খুলনা মেডিকেলে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ২৫


প্রকাশিত: August 27, 2016 , 8:10 pm | বিভাগ: আপডেট,মেডিকেল কলেজ


KMC

খুলনা লাইভ: আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের নেতা-কর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন।

শনিবার সকালে ও দুপুরে এসব সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব নমিতা হালদার কলেজ ও হাসপাতাল পরিদর্শনে যান। হাসপাতালে পরিদর্শনে গিয়ে তিনি তত্ত্বাবধায়কের কক্ষে অবস্থান করছিলেন। এদিকে খুলনা মেডিকেল কলেজে তাঁর সংবর্ধনার আয়োজন চলছিল। তখন এই আয়োজনকে কেন্দ্র করে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কলেজ ক্যানটিনে খুলনা মেডিকেল কলেজে ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি সাইফুল্লাহ মানসুর পক্ষের কর্মীদের সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমানের পক্ষের কর্মীদের হাতাহাতি ও মারামারি হয়।

এতে কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী সামান্য আহত হন। পরে বেলা একটার দিকে দু’পক্ষের মধ্যে আবারো উত্তেজনা শুরু হয়। কলেজের দুই নেতা সোনাডাঙ্গা থানা ছাত্রলীগের দুই নেতাকে খবর দেন। সোনাডাঙ্গা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি জনি বসু সাইফুল্লাহর পক্ষের সঙ্গে এবং সাধারণ সম্পাদক রোমান আহমেদ সাইদুরের পক্ষের সঙ্গে যোগ দেন।

পরে উভয় পক্ষে কলেজ ক্যাম্পাসে কয়েক ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের সময় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা কলেজ ও হাসপাতাল ভবনের বিভিন্ন কক্ষের জানালা ও একটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। সংঘর্ষে অন্তত ২৫ জন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ও র‍্যাব গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সোনাডাঙ্গা থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রুমান আহমেদ অভিযোগ করেন, বিষয়টি মীমাংসার জন্য ক্যাম্পাসে গেলে থানা সভাপতির জনি বসুর নেতৃত্বে কিছু কর্মী তাঁদের ওপর হামলা চালায়।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে জনি বসু বলেন, মেডিকেল কলেজে মারামারি হচ্ছে, শুনে আমি গিয়েছি। তবে আমি নিজে মারামারিতে অংশ নিইনি।

খুলনা নগরের সোনাডাঙ্গা মডেল থানার ওসি সুকুমার বিশ্বাস বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‍্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

 

ঢাকা, ২৭ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এফআর