[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



সঙ্গীতকে ঘিরে স্বপ্ন দেখে প্রীতি


প্রকাশিত: September 1, 2016 , 10:32 pm | বিভাগ: ফিচার


pritee

নাটোর লাইভ: আন্ত:বিভাগ সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় হয়েছে প্রথম। মার্কস অলরাউন্ডার প্রতিযোগিতায় রাজশাহী বিভাগে হয়েছিল চতুর্থ। বর্তমানে সুযোগ আসছে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার। স্বপ্ন এখন আরো এগিয়ে যাওয়ার। স্বপ্নবাজ প্রীতিকে নিয়ে লিখেছেন ক্যাম্পাসলাইভের প্রতিবেদক জুবায়ের হোসেন বাপ্পি।

বাবা পেশায় একজন সঙ্গীত শিক্ষক বাবার কাছে সঙ্গীত জীবনের হাতে খড়ি বাবা যখন গানের রেওয়াজ করতেন তখন থেকে চুপিচুপি শুনে মনেমনে গাইতেন। এর পরে পরিবারের ইচ্ছেতে তালিম নিতে শুরু করেন বাবার কাছে। তবে শৈশব জীবনে কোথাও বড় কোনো প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করেনি।

এর মধ্যে চলে গেছে অনেক বছর কিন্তু গানের মায়া ছাড়তে পারেনি তাকে।

কথা বলছিলাম প্রীতি কণা সূত্রধর এর সাথে বাড়ি নাটোর শহরের দক্ষিণ বড়গাছা পালপাড়া। বাবা শ্রীদাম কুমার সুত্রধর ও মা পারুল সুত্রধরের একমাত্র কন্যা প্রীতি। ইচ্ছে ছিল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সংগীত বিভাগে পড়া। সুযোগও মিলেছিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা বিভাগে কিন্তু ভর্তি সংক্রান্ত জটিলতার কারণে তা আরো হয়ে ওঠেনি।

তবে তার ইচ্ছে শক্তিকে দমিয়ে রাখতে পারেনি কেউ। শিখেছেন আধুনিক, উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত, রবীন্দ্রসংগীত, নজরুলগীতি। এরমধ্যে আন্ত:বিভাগ সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় নজরুলগীতিতে প্রথম ও আধুনিকে পেয়েছে দ্বিতীয় পুরষ্কার। এছাড়া বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান গাইতে পাচ্ছেন আমন্ত্রণ।

প্রীতি বর্তমানে পড়াশুনা করছে নাটোর নবাব সিরাজ (এনএস) উদ্-দৌলা সরকারি কলেজে অর্থনীতি বিভাগ দ্বিতীয় বর্ষে।

প্রীতি বলেন, ছোটবেলায় সবাই কমবেশি নাচ-গান করে। পরে সেটা ধরে রাখতে পারে না। কিন্তু গানটা আমার অস্তিত্বের সঙ্গে মিশে গেছে। মানুষের জীবনে মৌলিক চাহিদা পাঁচ’টি কিন্তু আমার ছয়’টি আর সেটি হল গান। আমি এখন গান ছাড়া অন্য কিছু ভাবতে পারি না।

”পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় যখন ভর্তি হতে পারলাম না তখন ঠিক করেছিলাম, আর যা-ই করি, গান ছাড়ব না। তবে এ জন্য মায়ের অবদানই সবচেয়ে বেশি।”

শিক্ষা জীবন শেষে চাকরিতে ঢোকার ইচ্ছে থাকলেও ‘সঙ্গীতশিল্পী’ পরিচয়টা হারাতে চান না কখনো।

কলেজে ভর্তির পর কলেজের যেকোনো অনুষ্ঠান যেমন; বিজয় দিবস, নবীনবরণ, পহেলা বৈশাখসহ সব সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেই মঞ্চে প্রীতিকে দেখা গেছে। অতি অল্প সময়ের মধ্যে তার সুমধুর গান দিয়ে কলেজের সবার প্রিয় মুখ হয়ে উঠেছেন।

তিনি আরো বলেন, কলেজে আন্ত:বিভাগ প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে কিন্তু সেখানে নাম দিতে ভয় পাচ্ছে কলেজ মিলনায়তনে হল ভর্তি দর্শকের সামনে গাইতে হবে যদি না পারি। এমনি নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে মাথায় কিন্তু তার বান্ধবি লিজা কোনো কথা না শুনে তার নাম লিখিয়ে দিয়েছিল। তবুও মন মানছে না। সে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে নজরুলগীতিতে পেয়েছি প্রথম পুরষ্কার।

মেয়ে হিসেবে তাকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। সঙ্গীতের প্রতি ভালবাসা থেকে প্রতি সপ্তাহে একদিন নাটোর থেকে রাজশাহীতে যান সঙ্গীত চর্চা করতে। বর্তমানে সঙ্গীত চর্চা করছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর শলক হোসেনের কাছে।

পাশাপাশি সঙ্গীত অনুধাবন করার জন্য শিখেছেন তবলা, হারমোনিয়াম বর্তমানে শিখছে বেহালা।

আর সে কারণে কলেজে ক্লাস ছাড়া বাকি সময়ের বেশির ভাগই সঙ্গীতের রেওয়াজে ব্যস্ত থাকেন। তাই বন্ধুদের সঙ্গে নিয়মিত আড্ডা দেয়া হয় না। নিজে এখনো শিক্ষার্থী হলেও এর মধ্যেই গানের শিক্ষক হিসেবে কাজ শুরু করেছেন প্রীতি। তার বাড়ির পাশে কয়েক জন ছাত্রীকে তিনি গান শেখান।

ইচ্ছা জীবনে প্রতিষ্ঠিত হয়ে গান প্রিয় শিক্ষার্থীদের বিনামূল্য সঙ্গীত শিক্ষা দেবেন।

”কষ্ট তো করছি গানের জন্য। আমার স্বপ্নের পুরোটা জুড়েই গান। অবিরাম সেই স্বপ্নের পথেই ছুটে চলছি।”

জেএইচ//নাটোর, ১ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এফআর