[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



১০-২০-৩০ টাকা হলেও বাধ্যতামূলক কর!


প্রকাশিত: September 8, 2016 , 3:57 am | বিভাগ: বিজনেস


abul-mal-abdul

বিজনেস লাইভ: ১০ টাকা, ২০ টাকা, ৩০ টাকাও কর হতে পারে। আয় করলেই বাধ্যতামূলক কর আরোপের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, ‘আমাদের বাধ্যতামূলক কর আরোপ করা উচিত। এটা হতে পারে অল্প টাকা। আমি এ প্রস্তাব করছি। দেশের মানুষের মধ্যে কর দেওয়ার সংস্কৃতি গড়ে উঠুক।’
জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত পে-রোল ট্যাক্স বা বেতন থেকে অগ্রিম কর কেটে রাখা-সংক্রান্ত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, যাঁদের আয় নেই, তাঁদের জন্য এ বাধ্যতামূলক কর নয়। বাকি সবাইকে এ করের আওতায় আনা যায় কি না, ভাবতে হবে।
পে-রোল ট্যাক্স কেটে রাখতে বেসরকারি খাতের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করার জন্য এনবিআরকে পরামর্শ দেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীদের পে-রোল ট্যাক্সের আওতায় আনা যেতে পারে।
কেননা, বেসরকারি খাতেই বেশি কর্মসংস্থান হয়। যখন ওই সব বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের বেতন দেবে, তখনই তারা অগ্রিম কর কেটে রাখবে।
এ বছর নতুন তিন লাখ করদাতা চিহ্নিত করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে এনবিআর। এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এ লক্ষ্য নিয়ে আমি হ্যাপি নই। লক্ষ্য আরও বড় করা উচিত।’
১৬ হাজার টাকা বেতন পান, এমন সরকারি কর্মকর্তাদের বার্ষিক আয়কর বিবরণী জমা বাধ্যতামূলক করার বিষয়টি অর্থমন্ত্রীর ভাষায়, ‘এটি ভালো হয়েছে। এতে টিআইএন (কর শনাক্তকরণ নম্বর) নেওয়ার স্পিরিট তৈরি হবে।’

এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে এ সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বৃহৎ করদাতা ইউনিটের (এলটিইউ) কর কমিশনার আলমগীর হোসেন।
বিশেষ অতিথি বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মাসুদ আহমেদ বলেন, এ পর্যন্ত যত কর-সংক্রান্ত মামলা হয়েছে, তাদের মধ্যে দু-তিনজন ছাড়া বাকি সবাই সসম্মানে বের হয়ে গেছেন।
তাই মামলা করার ক্ষেত্রে এনবিআরকে আরও দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে। মাসুদ আহমেদ আরও বলেন, কর্মকর্তাদের ব্যবহার ভালো না, এটা শুধু এনবিআর নয়, অন্য বিভাগেও একই অবস্থা। তাই সমালোচনা করলে সব বিভাগের করা উচিত। কর কর্মকর্তাদের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, নিউ মার্কেটে যিনি মাছ বিক্রি করেন, তাঁর আয়ও মাসে এক লাখ টাকার বেশি। তাঁদের দিকে নজর দেন।
আবার গুলশান, বারিধারা, বনানী এলাকায় বাড়িভাড়ার চুক্তিতে অনেক কম মূল্য লেখা থাকে। উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, বাড্ডা এলাকার এক ডেসিমেল জমির দাম ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা দেখিয়ে নিবন্ধন করা হয়েছে। জমি ক্রেতা ও বিক্রেতা কর ফাঁকি দেওয়ার জন্য এটা করেছেন। এভাবে কর ফাঁকি রোধে গোয়েন্দা কার্যক্রম বৃদ্ধির পরামর্শ দেন তিনি।
বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, বাংলাদেশে পে-রোল ট্যাক্স থেকে মোট আয়করের মাত্র দশমিক ৪ শতাংশ আসে। উন্নত দেশে এ হার ৯-১০ শতাংশ ও উন্নয়নশীল দেশে ৪ শতাংশ। তাই এ ট্যাক্স থেকে আদায় কমপক্ষে ১০ গুণ বাড়ানো উচিত।

আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘পে-রোল কর আদায় এখনো বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে স্বেচ্ছা পরিপালনযোগ্য। এনবিআর কখনো একটি নোটিশও দেয়নি।’ তিনি মনে করেন, টিআইএন ছাড়া চাকরি দেওয়া হবে না, এমন নিয়ম চালু করা উচিত। এ ছাড়া করের আওতা বাড়াতে আগামী ৫-১০ বছর করমুক্ত আয়সীমা বৃদ্ধি না করার সুপারিশ করেন তিনি।

 

ঢাকা, ০৮ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম) //এএম