[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



শেরপুরে চারটির মধ্যে দুইটি বুথই বিকল


প্রকাশিত: September 10, 2016 , 9:33 pm | বিভাগ: বিজনেস


ATM

শেরপুর লাইভ: শেরপুর জেলা শহরের যমুনা, ব্র্যাক, ডাচবাংলা এবং ইসলামী ব্যাংকের মোট ৪টি এটিএম বুথ রয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে ঈদের লম্বা ছুটি’র কারণে শুক্রবার থেকেই ওইসব এটিএম বুথে টাকা তোলার চাপ পড়ে গেছে। ইতোমধ্যে যমুনা ব্যাংক ও ব্রাক ব্যাংকের এটিএম বুথ বন্ধ থাকায় ওইসব ব্যাংকের গ্রাহকদের ছুটতে হচ্ছে অন্য ব্যাংকের বুথের দিকে।

কিন্তু ডাচবাংলা ফাস্ট ট্র্যাক অফিসের বুথও দুইদিন যাবত অন্য ব্যাংকের কার্ড নিচ্ছে না বলে জানান বিভিন্ন ব্যাংকের গ্রাহক। কেবল মাত্র ইসলামী ব্যাংকের বুথ সচল থাকলেও ওই ব্যাংকের নির্ধারিত টাকা যে কোন সময় শেষ হয়ে গেলে বেকায়দায় পড়বে গ্রাহকরা। কারণ ঈদের আরো দুই দিন বাকী রয়েছে। সেই সাথে আরো দুই দিন ছুটি নিয়ে রয়েছে মোট ৪ দিনের ছুটি।

অনেক গ্রাহক ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়িতে আসছে ঈদের ছুটিতে এবং পশু কোরবানী করতে। নগদ টাকা বহন করা ঝুকি থাকায় অনেকেই বুথের মাধ্যমে টাকা তোলার পরিকল্পনা নিয়ে শেরপুর আসলেও অনেকেই ইতোমধ্যে ব্যাংক গুলোর বুথের এহেন অবস্থার জন্য বেকায়দায় পড়েছে।

শহরের সজবরখিলা বাড়ি ঢাকায় একটি বেসরকারী প্রকৌশল ফার্মে চাকুরি করেন আবুল হোসেন। তিনি গত রাতে ঢাকা থেকে এসে আজ ১০ সেপ্টেম্বর শনিবার বেলা ১২ টায় যমুনা ব্যাংকের বুথ থেকে টাকা তুলতে গিয়ে দেখেন বুথ বন্ধ। তাই ইসলামী ব্যাংকের বুথে এসে টাকা তুলে নিয়ে যায়।

তিনি জানান, আমি আরো কয়েক দিন শেরপুর থাকবো। সেক্ষেত্রে আমার আবারও টাকার প্রয়োজন হলে তো সমস্যায় পড়তে হবে দেখছি। কারণ ইসলামী ব্যাংকের দীর্ঘ লাইন যে ভাবে শুরু হয়েছে তাতে মনে হয় আগামী কালের মধ্যেই টাকা শেষ হয়ে যাবে।

অপরদিকে শহরের সিংপাড়া মহল্লার আহাম্মদ উল্লাহ ব্র্যাক ব্যাংকের বুথ বিকল হওয়ায় ইসলামী ব্যাংকের বুথে আসছিলেন টাকা তুলতে কিন্তু ব্র্যাকের এটিএম কার্ড শো হচ্ছে না বিধায় তিনি ভগ্ন হৃদয়ে ফিরে যান।

ব্যাংক এশিয়ার এটিএম কার্ড ধারী সুমন ডাচবাংলা ব্যাংকের ফাস্ট ট্র্যাক এর বুথে টাকা তুলতে গিয়ে টাকা না তুলতে পেয়ে ফিরে আসেন ইসলামী ব্যাংকের বুুথে। এখানে লাইনে দাড়িয়ে অনেকক্ষন অপেক্ষা করে টাকা তুলেন। সুমন জানান, ডাচবাংলা থেকে টাকা তোলা গেলেও আজ আমার কার্ড শো করছে না। তাই ইসলামী ব্যাংকের বুথে টাকা তুলতে আসছি।

এদিকে বুথ বিকলের বিষয়ে ব্র্যাক ব্যাংকের কোন কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা না গেলেও শহরের খরমপুরস্থ বুথের সিকিউরিটিরা জানান, দুই দিন থেকে বুথ নষ্ট, কবে ঠিক হবে তা তারা বলতে পারে না। তবে অসংখ্য মানুষ টাকা তুলতে এসে ফিরে যাচ্ছে বলে জানান তারা।

এদিকে যমুনা ব্যাংকের ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ মোবাইলে সাংবাদিকদের জানান, আমার বুথ নষ্ট বা বিকল নয়। বৃহস্পতিবার নগদ ৩০ লাখ টানা লোড করলেও শুক্রবারের মধ্যেই তা শেষ হয়ে যায়। তাই বুথ বন্ধ রাখা হয়েছে। ব্যাংক খুললে তাতে টাকা লোড করা হবে।

এদিকে ইসলামী ব্যাংকের একটি সূত্রে জানা গেছে, ইসলামী ব্যাংকের বুথে ৬০ লাখ টাকা লোড করা হয়েছে। যে কয়দিন চলে চলবে। টাকা শেষ হয়ে গেলে ব্যাংক না খোলা পর্যন্ত বুথ বন্ধ থাকবে।

এদিকে এটিএম কার্ডধারী সাধারণ ব্যাংক গ্রাহকরা বিভিন্ন ব্যাংকের আরো বেশী করে বুথ রাখার দাবি জানিয়েছেন। সেইসাথে তারা বুথগুলোকে সব সময় সচল রাখারও দাবি করেন ভুক্তভোগি গ্রাহকরা।

রফিক//শেরপুর, ১০ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// এফআর