[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



ইমেজ সংকটে ঢাবি: এক আসনের জন্য ৩৪ শিক্ষার্থী


প্রকাশিত: September 30, 2016 , 5:32 pm | বিভাগ: আপডেট,এডমিশন,ক্যাম্পাস,ঢাকার ক্যাম্পাস,পাবলিক ইউনিভার্সিটি


 

du_admissionফাইল ছবি:

ঢাবি লাইভ: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে নানান প্রশ্ন উঠেছে। সেটে প্রশ্নপত্র কম, ভুল তথ্যসহ বিভিন্ন বিভ্রান্তি রয়েছে গোটা প্রশ্নজুড়ে। সামালোচনায় পড়েছেন ভর্তি কমিটি। একই ভাবে মান আর ইমেজ সংকটে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আর শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়ছে নানা গুঞ্জন ও সন্দেহ। খোদা বিশ্বদ্যিালয়ের অনেক শিক্ষক এই রহস্যজনক কাজের সমালোচনা করেছেন, বলেছেন, এটা দায়সারা গোছের কাজ। এর সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও পদত্যাগ চেয়েছেন।

শিক্ষার্থীরা জানান, একটি সেটের প্রশ্নপত্রে একটি প্রশ্ন কম থাকার ব্যাপারে নানান গুঞ্জন চলছে। কেন কম এ বিষয়ে বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মুখ খুলছেন না। অন্যদিকে প্রশ্নপত্রে রয়েছে অনেক বিভ্রান্তি। এছাড়া প্রশ্নপত্রে ১০০টি প্রশ্ন থাকার কথা থাকলেও সেখানে ছিল ৯৯টি প্রশ্ন।

শুক্রবার সকাল ১০টায় পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর এ ত্রুটি ধরা পড়ে। ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা কমিটির আহ্বায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. শিবলী রুবাইয়াত ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, একটি প্রশ্ন কম থাকায় ওই সব পরীক্ষার্থীকে ওই প্রশ্নের নম্বর দিয়ে দেওয়া হবে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যেসব শিক্ষার্থী ওই সেট প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়েছেন তারা সবাই বাদপড়া প্রশ্নের জন্য নম্বর পাবেন।

DU+Ga+Unit-Empty+Question+cl

যেই সেটের প্রশ্নপত্রে কম প্রশ্ন ছিল, সেই সেটে পরীক্ষা দিয়েছেন প্রান্তিক বড়ুয়া নামের একজন শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, বিষয়টি স্যারদের জানানো হলে তারা বলেন, নম্বর দিয়ে দেওয়া হবে। নির্দেশনা আসার আগেই যারা ভুলবশত উত্তর পূরণ করেছিলেন তাদের ওএমআর শিট (উত্তরপত্র) পরিবর্তন করে দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে ঢাবি কর্তৃপক্ষ সূত্রে।

এবার প্রশ্নপত্রে সেটের নাম না লিখে বারকোড ব্যবহার করা হয়। ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা কমিটির আহ্বায়ক ও বাণিজ্য অনুষদের ডিন শিবলী রুবায়েত-উল-ইসলাম বলেন, “প্রশ্নের অনেকগুলো সেট থাকে। একটি প্রশ্ন কম থাকা সেটে যারা পরীক্ষা দিয়েছে তারা সবাই কমন নম্বর পাবেন।”

একটি প্রশ্ন কম থাকা প্রশ্নে যেসব শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ওএমআর শিট পূরণ করেছেন ও যারা ওএমআর শিটে ওই প্রশ্নের উত্তর পূরণ করেননি উভয়েই নম্বর পাবেন বলে জানান তিনি। পরীক্ষার্থীরা জানান, ‘গ’ ইউনিটের একটি সেটের প্রশ্নে ৭ নম্বর প্রশ্ন ছিল না। ওই সেটে ৬ নম্বর প্রশ্নের পরেই ছিল ৮ নম্বর প্রশ্ন।

পরীক্ষার হলে শিক্ষার্থীরা বিষয়টি পরীক্ষকদের জানালে তাৎক্ষণিকভাবে তাদের ৭ নম্বর প্রশ্নের ঘর ফাঁকা রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল বলেও জানান পরীক্ষা কমিটির আহ্বায়ক শিবলী।

সেটে প্রশ্ন না থাকা সত্বেও যেসব শিক্ষার্থী ৭ নম্বর প্রশ্নের উত্তর পূরণ করেছিলেন তাদের বেশ কয়েকজনকে ওএমআর শিট বদলে দেওয়া হয় বলেও প্রক্টর দপ্তরের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

du+incdu+qu$$

পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন বা টেলিযোগাযোগ করা যায় এরূপ কোনো ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস বা যন্ত্র সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। জালিয়াতি ঠেকাতে পরীক্ষার সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্ব পালন করেছে।

ভুলে ভরা:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ব্যবসায়ে শিক্ষা অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিটের অধীনে প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে একাধিক ভুল পাওয়া গেছে। এছাড়া অন্যান্য সেটগুলোতে প্রশ্নের সিরিয়াল নম্বরে ভুল রয়েছে।

প্রশ্নপত্রের কয়েকটি সেট বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, একটি সেটে ফাইন্যান্স অংশে ৬ নম্বর প্রশ্নের পরে ৭ নম্বর নেই। সেখানে ৮ নম্বর থেকে বাকী প্রশ্ন দেয়া আছে। এছাড়া আরেকটি সেটের অ্যাকাউন্টিং প্রশ্নের ১৮ নম্বর প্রশ্নটির অপশনে ইংরেজি ভার্সনে একটি এবং বাংলায় ভার্সনে আরেকটি সংখ্যা দেয়া আছে। এ প্রশ্নের উত্তর নির্বাচনেও বিভ্রান্তিতে পড়তে হয়েছে শিক্ষার্থীদের।

আরেকটি সেটে ইংরেজি অংশে শুন্যস্থান পূরণ অংশে ৬ থেকে ১২ পর্যন্ত পূরণ করার কথা বলা থাকলেও প্রশ্নে ছিল ৬ থেকে ১১ পর্যন্ত। একই সেটে অ্যাপ্রোপ্রিয়েট প্রিপোজিশান অংশে ১৩ থেকে ১৭ নম্বর প্রশ্নের উত্তর দেয়ার কথা বলা থাকলেও প্রশ্ন শুরু হয়েছে ১২ নম্বর থেকে। এছাড়াও প্রশ্নপত্রে বাংলা টাইপিংও ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। একই প্রশ্ন লেখা হয়েছে Sutonny MJ ও Vrinda উভয় ফন্টে। আরেক সেটের মার্কেটিং অংশের প্রশ্নগুলোতে বাংলা বানানে ব্যাপক ভুল করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ‘গ’ ইউনিট ভর্তি পরীক্ষা কমিটির আহ্বায়ক ও ব্যবসায়ে শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম বলেন, যাদের প্রশ্নপত্রে একটি প্রশ্ন কম ছিল তাদের এবং যাদের সেটে প্রশ্ন ছিল কিন্তু শিক্ষার্থীরা প্রশ্নের উত্তর ভুল করেছে তাদের সবাইকে নম্বর দিয়ে দেওয়া হবে। এ বিষয়ে হলে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে প্রশ্নের এসব ভুল নিয়ে ভর্তিচ্ছুদের মাঝে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। সমলোচনার ঝড় বইছে প্রক্টর অফিসে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যেও।

কয়েকজন শিক্ষক বলেন, এর ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা ও গ্রহণযোগ্যতা ক্ষুণ্ণ হয়েছে। দায়সারা কাজের খেসারত দিতে হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়কে। একজন শিক্ষক ব্যবসায়ে শিক্ষা অনুষদের ডিনের পদত্যাগও দাবি করেন প্রক্টর রুমে।

এদিকে প্রশ্নের এতো ভুল দেখে পরীক্ষার হল পরিদর্শকগণ শিক্ষার্থীদের হেডিংয়ের নির্দেশনা ফলো না করারও নির্দেশনা দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর প্রফেসর ড. আমজাদ আলী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নে এ ধরণের ভুল অনাকাঙ্ক্ষিত। আশা করি সামনে এ ধরণের ভুল আর হবে না। এ ব্যপারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সচেতন থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, সুষ্ঠুভাবেই পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। ভুলের জন্য সবাইকে নম্বর দেয়া হবে। বিষয়টি পরীক্ষার হলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ব্যবসায়ে শিক্ষা অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিটের অধীনে ১ম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়। বেলা ১১টায় শেষ হয় ওই পরীক্ষা। ‘গ’ ইউনিটে এক হাজার ২৫০টি আসনের বিপরীতে ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৪২ হাজার ১৪৭ জন। প্রতি আসনের বিপরীতে লড়েছেন ৩৪ শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বাইরে বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল ও কলেজ, নীলক্ষেত হাই স্কুল, গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, আইডিয়াল কলেজ, বেগম বদরুন্নেছা মহিলা কলেজ এবং উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল ও কলেজ কেন্দ্র ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা হয়েছে।

পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য হলে পরীক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্ট কাউকে মোবাইল ফোনসহ টেলিযোগাযোগ করা যায় এমন ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস/যন্ত্র নিয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। অতিরিক্ত সতর্কতা মেনে প্রতিটি ভবনের প্রবেশ মুখে পুলিশের অবস্থান ছিল। এছাড়া গতবারের মতো এবারও সবকটি পরীক্ষায় ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্ব পালন করেছে। পাশে পুলিশকেও সতর্ক থাকতে দেখা গেছে।

ঢাকা, ৩০ সেপ্টেম্বর, (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// এএম