[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



জিঙ্গাসাবাদে কোন ক্লু পায়নি পুলিশ!


প্রকাশিত: October 21, 2016 , 4:04 pm | বিভাগ: আপডেট,পাবলিক ইউনিভার্সিটি,রাজশাহীর ক্যাম্পাস


Lipu2

রাবি লাইভ: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মোত্তালিব হোসেন লিপুর হত্যাকান্ডের একদিন পরেও কোন ক্লু বের করতে পারেনি পুলিশ। এদিকে জিঙ্গাসাবাদের জন্য চার জন আটক করা হলেও তার রুমমেটকে রেখে বাকি তিন জনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

আটকৃতদের মধ্যে ছিলো, লিপুর রুমমেট মনিরুল ইসলাম, সহপাঠি প্রদীপ, দুইজন নৈশ্য প্রহরী মনির ও নয়ন।

এ বিষয়ে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, যেহেতু এটি খুবই সেনসেটিভ বিষয় তাই জিঙ্গাসাবাদের জন্য গতকলই চার জনকে থানায় আনা হয়েছিল। এর মধ্যে গতকাল রাতেই তার বন্ধু প্রদীপকে জিঙ্গাসাবাদ করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। আর দুজন নৈশ্য প্রহরীকে আজ সকালে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

আরো কিছু জিঙ্গাসাবাদের জন্য তার রুমমেটকে এখনো থানায় রাখা হয়েছে। তবে তাদের নিকট থেকে তেমন কিছু পাওয়া যায়নি।

মামলার সর্বশেষ অবস্থা জানতে চাইলে রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ইফতেখার আলম মাসউদ ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, গতকাল বিকেলে লিপুর চাচা বাদী হয়ে অঙ্গাতনামায় মামলা করেছে। আমাদের পক্ষ থেকে এ হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে। কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে আসলে এখনো কোন কিছু পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।

এদিকে মোত্তালিব হোসেনের লিপুর এমন হত্যাকান্ড নিয়ে রহস্যের গুঞ্জন থেকেই যাচ্ছে। লিপুকে তেমন কোন রাজনৈতিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকতে দেখা যায়নি। এছাড়াও আত্ন হত্যার কোন আলামত পাওয়া যায়নি ময়না তদন্তে। ‘নিহতের মাথার ডান পাশে বড় ধরনের আঘাতের কারনে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন রামেক হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের সিনিয়র প্রফেসর ডা. এনামুল হক।

তবে লিপুর এ হত্যাকান্ডে জাড়িত থাকতে পারে তার বদলি পরীক্ষা দেয়ার বিষয়। সহপাঠীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, লিপু কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। তবে অর্থনৈতিক সংকটজনিত মানসিক দুশ্চিন্তায় থাকতেন। বছরখানেক আগে একটি নিয়োগের পরীক্ষায় বদলি পরীক্ষা দিতে গিয়ে তিন মাস জেল খাটেন তিনি। পরে জামিনে মুক্ত হন। এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে কারো সঙ্গে দ্বন্দ থাকতে পারে।

একই প্রসংঙ্গ উল্লেখ করে গতকাল লিপুর চাচা বশির উদ্দিন জানান, ‘গত মঙ্গলবার লিপু বাড়ি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে। কারো সঙ্গে ঝামেলায় না জড়িয়ে পড়াশোনা করতে বলি। এর আগে বদলি পরীক্ষা দিয়ে ধরা পড়ার পর কয়েকজন লিপুকে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে আসছিল।’

উল্লেখ্য, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয় নবাব আব্দুল লতিব হলের ড্রেন থেকে মেত্তালিব হোসেন লিপুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লিপু গনযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষর্থী ও নবাব আব্দুল লতিব হলের ২৫৩ নম্বর রুমের আবাসিক ছাত্র ছিলেন।
ঢাকা, ২১ অক্টোবর, (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// আইএইচ