[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



অনুষ্ঠানে যেতে না চাওয়ায় রাবি ছাত্রকে পেটাল ছাত্রলীগ


প্রকাশিত: November 5, 2016 , 12:31 am | বিভাগ: আপডেট,পাবলিক ইউনিভার্সিটি,রাজশাহীর ক্যাম্পাস


pituni-live

রাবি লাইভ : রাজশাহী জেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের আয়োজনে জেলহত্যা দিবসের অনুষ্ঠানে না যাওয়ায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাহ মখদুম হলের আবাসিক শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে হল ছাত্রলীগের এক নেতা। শুক্রবার বিকালে হলের গেটে ওই শিক্ষার্থীকে মারধর করে শাহ মখদুম হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান কিরণ।

এ ঘটনার শিকার ফিরোজ আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি শাহ মখদুম হলের ৩৩৭ নম্বর কক্ষের আবাসিক ছাত্র।

ছাত্রলীগের কয়েক জন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ‘শুক্রবার বিকাল চারটা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ কলাভবনের ১৫০ নম্বর কক্ষে বঙ্গবন্ধু পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার উদ্যোগে ‘জেলহত্যা দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান ও রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। ওই অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বিভিন্ন হলের শিক্ষার্থীদেরকে উপস্থিত থাকতে বলা হয়। হলের নেতাকর্মীরা তাই শিক্ষার্থী ও দলীয় কর্মীদের অনুষ্ঠানে নিয়ে যায়। সেই অনুষ্ঠানে যেতে না চাওয়ায় দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থীকে মারধর করে ছাত্রলীগ নেতা কিরণ।

এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর মুহম্মদ নূরুল্লাহ বলেন, ‘ছাত্রলীগ বা প্রগতিশীল ছাত্র-শিক্ষকরা এই অনুষ্ঠানে আসবেন আমরা সেটাই প্রত্যাশা করি। কিন্তু অনুষ্ঠানে না আসতে চাইলে কোনো শিক্ষার্থীকে মারধর করা খুবই দুঃখজক।’

ভিকটিম শিক্ষার্থী ফিরোজ আহমেদ বলেন, ‘আগামীকাল (শনিবার) আমার বিভাগের পরীক্ষা থাকায় হলের বাইরে নোট ফটোকপি করতে বের হই। এসময় ছাত্রলীগের এক নেতা আমাকে ডেকে অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা বলেন। আমি তাদেরকে পরীক্ষার কথা জানিয়ে কক্ষে ফিরে আসতে চাই। কিন্তু ছাত্রলীগের নেতারা আমায় ডেকে নিয়ে হলে সবার সামনে গালে থাপ্পর বসিয়ে দেয়।’

ওই শিক্ষার্থী আরও বলেন, ‘আমি ওই ছাত্রলীগ (কিরণ) নেতাকে চিনতে পারিনি বলে তারা আমায় খারাপ ভাষায় কথা বলেন।’

হলের কয়েকজন আবাসিক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘কামরুজ্জামান কিরণ এর আগেও অনেক শিক্ষার্থীকে এভাবে জোর করে অনুষ্ঠানে নিয়ে যায়। একাধিকবার হল গেটে তালা লাগিয়ে শিক্ষার্থীদেরকে দলীয় অনুষ্ঠানে নিয়ে যেতেও বাধ্য করেন কিরণ। শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানে যেতে না চাইলে এর আগেও তাদেরকে মারধর করেছিল কিরণ। কিন্তু এ বিষয়ে ছাত্রলীগ বা হল প্রশাসন কোনো উদ্যোগ নেয়নি।’

শাহ মখদুম হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান কিরণ বলেন, ‘হ্যাঁ, আমি ফিরোজ নামের ওই ছেলেকে থাপ্পড় মেরেছি। কারণ, তাকে অনুষ্ঠানে যেতে বলেও সে যায়নি এবং আমি যে হলে ছাত্রলীগের দায়িত্বে আছি সে তাও জানে না।’

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক খালেদ হাসান বিপ্লব বলেন, ‘আমি বিষয়টি এখনও শুনিনি। খোঁজ নিয়ে দেখছি।’

শাহ মখদুম হলের প্রোভোস্ট জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘হলের শিক্ষার্থীদেরকে বাধ্য করে  যেন অনুষ্ঠানে না নিয়ে যাওয়া হয় এ বিষয়ে ওই ছাত্রলীগ (কিরণ) নেতাকে এর আগেও বারন করেছি। আমি এখন রাজশাহীর বাহিরে আছি। হলে গিয়ে ঘটনাটি খতিয়ে দেখে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

 

 

রাবি//এমইএন, ০৫ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন