[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



স্কুল ছাত্রী প্রেমিকাকে হত্যার দায়ে প্রেমিক গ্রেফতার


প্রকাশিত: January 29, 2014 , 9:43 pm | বিভাগ: রংপুরের ক্যাম্পাস


ঠাকুরগাঁও লাইভঃ প্রেমের মায়াজালে জড়িয়ে সম্ব্রম লুটে নিয়ে নিজের হাতে গলা টিপে ভালবাসার মানুষটিকে হত্যা করেছে প্রেমিক। পরে প্রেমিককে আটক করেছে পুলিশ। স্বীকার করেছেন তার ‘ভালবাসার’ মানুষকে নিজ হাতে হত্যার কথা।

প্রেমিকার নাম গোলাপী। ঠাকুরগাঁয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার পীরপালীগাঁও এলাকার ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী। আর খুনী প্রেমিক একরামুল (২১) একই জেলার বালিয়াডাঙ্গীর লাহিড়ী মাছঘুড়িয়া এলাকার বাসিন্দা।

একরাম পুলিশকে জানিয়েছে, ‘ও আমাকে মিথ্যা কথা বলেছে। সেই অপরাধের শাস্তি দিতে নিজের হাতেই তাকে হত্যা করেছি।’

তবে কোনো প্রতিক্রিয়া নেই একরামুলের মধ্যে। একেবারেই নির্বিকার। তবে পুলিশের কাছে এটাও স্বীকার করেছে সে নিজেই চাচ্ছিল পুলিশ তাকে ধরুক। পুলিশ কাছে ধরা না পড়লে সে আত্মহত্যা করত বলেও জানিয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে ঠাকুরগাঁও গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের একটি দল একরামুলকে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার লাহিড়ী মাছঘুড়িয়া এলাকা গ্রেপ্তার করেছে।
পুলিশের কাছে দেয়া স্বীকারোক্তিমতে, মোবাইল ফোনে কথা বলতে গিয়ে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী গোপালীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে একরামের।

কয়েক মাস ধরে ফোনে কথা বলার পর তাদের সম্পর্ক ঘনিষ্ট হয়।

একদিন গোলাপীর মোবাইল ফোনে কল দেয় একরামুল। সেদিন এক ছেলে ওই কল রিসিভ করে। এরপর একরামুল কল দিয়ে প্রেমিকা গোলাপীকে ছেলেটির বিষয়ে জানতে চায়। কিন্তু প্রেমিকা বিষয়টি এড়িয়ে যায়। এতে একরামুলের মধ্যে সন্দেহের সৃষ্টি হয়।

এরই এক পর্যায়ে গত ১৪ জানুয়ারি একরামুল ও গোলাপীর প্রথম দেখা হয়। সারাদিন ঘোরাঘুরি করে।

এদিকে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর এলাকায় একটি জঙ্গলে তাদের শারীরিক সম্পর্ক হয়। এরপর আবারো একরামুল ওই ছেলেটি সম্পর্কে জানতে চায়। এরপরেও বলতে না চাইলে ক্ষিপ্ত হয়ে গোলাপীর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তাকে হত্যা করে একরামুল।

ঘটনার পরদিন ১৫ জানুয়ারি ভানোর এলাকা থেকে অজ্ঞাতনামা এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ময়না তদন্তের পর লাশের পরিচয় পাওয়া গেলে থানায় হত্যা মামলা করা হয়।

নিহত পারিবারের দেয়া তথ্য নিয়ে ও মোবাইল ট্রাকিংয়ের মাধ্যমে ১৩ দিন পর মঙ্গলবার ভোরে হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা একরামুলকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশের এসআই রওশোনারাসহ একটি টিম।

ঠাকুরগাঁও এএসপি বেলায়েত হোসেন জানান, পুশিল তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে আসামীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে। সে খুনের কথা স্বীকার করেছে।

ঠাকুরগাঁও, ২৯ জানুয়ারি(ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আরজে