[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



সেই বৃদ্ধা মরিয়া প্রমাণ করিলেন তিনি মরেণনি!


প্রকাশিত: December 6, 2014 , 5:42 am | বিভাগ: ন্যাশনাল,মেডিকেল কলেজ


লাইভ প্রতিবেদক:  ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত ঘোষণার চার ঘন্টা পর জেগে ওঠা সেই অজ্ঞাত বৃদ্ধা এবার সত্যি সত্যিই মারা গেছেন। শুক্রবার তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্রাগ করেছেন। বিষয়টি নিয়ে বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। তিনি মরিয়া প্রমাণ করলেন আগের দিন তিনি মরেণনি।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় প্রথম দফায় মৃত ঘোষণার ২৫ ঘণ্টা পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে মৃত ঘোষণা করে। এবার চিকিৎসকরা ভুল করেননি। মৃত ঘোষণার আগে ওই নারীর আলট্রাসনোগ্রাম, ইসিজি, এক্স-রেসহ বেশ কয়েকটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে মৃত্যু নিশ্চিত হয়েই তাকে মৃত ঘোষণা করেছেন।

এদিকে মৃত ঘোষণার ৪ ঘণ্টা পর লাশ নড়ে ওঠার অবিশ্বাস্য ঘটনা তদন্তে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. ইনামুল করীমকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিন কার্যদিবসের মধ্যে ওই কমিটিকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. মুশফিকুর রহমান শুক্রবার বিকালে অজ্ঞাত ওই নারীর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বিকাল ৩টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা গেছেন। তার নাম-ঠিকানা পাওয়া যায়নি। কেউ তার খোঁজ নিতেও আসেননি। বলেন, জীবিত অবস্থায় ওই নারীকে মৃত ঘোষণার বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। ভুল বোঝাবুঝির কারণে বিষয়টি হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর দায়ী চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বৃহস্পতিবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত ঘোষণা, ডেথ সার্টিফিকেটসহ আনুষঙ্গিক বিষয় সম্পন্ন করে ডোম লাশ হিসেবে মর্গে নেয়ার সময় নড়ে ওঠেন অজ্ঞাত ওই নারী। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নতুন ভবনের ৮০২ নম্বর ওয়ার্ডের ৭ নম্বর ইউনিটে ভর্তি ছিলেন। তার মৃত্যুসনদে লেখা হয় ‌‌‌‌’হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান তিনি। মৃত্যুর সনদে একজন সহকারী রেজিস্ট্রারের সিল ও সই ছিল। তার মৃত্যুসনদে সই করেন একজন অবৈতনিক মেডিকেল অফিসার (এইচএমও)। ওই নারীকে হাসপাতালের পরিচালক ২ ডিসেম্বর ফুটপাত থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। রোগীর অভিভাবক হিসেবেও পরিচালকের নাম লেখা ছিল।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোগীকে বৃহস্পতিবার মৃত ঘোষণা করেন ডা. নিলুফা নীলা। তিনি বলেন, তাকে যখন মৃত ঘোষণা করি তার পালস পাওয়া যাচ্ছিল না। তাকে মৃতই মনে হচ্ছিল। কিন্তু এটা আমার ভুল ছিল।

এদিকে, শুক্রবার বিকালে মারা যাওয়ার পর ওই নারী রোগীর বিষয়টি পুলিশ কেস হিসেবে উল্লেখ করে মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। তার ময়নাতদন্ত শেষে আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলামের মাধ্যমে দাফন করা হবে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

ঢাকা, ০৬ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন