[english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ



বিশ্বের সেরা পাঁচটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাকৃবি!


প্রকাশিত: January 1, 2015 , 7:26 pm | বিভাগ: অপিনিয়ন


খান আসিফ তপু: নতুন বছরের শুরুতেই এই সুখবরটি দিয়েছে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় পত্রিকা নিউইয়র্ক টাইমস। পত্রিকাটি তাদের অনলাইন সংস্করণে বিশ্বের সেরা দশটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেংকিং প্রকাশ করে। এতে দেখা যায়, বাংলাদেশের ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ৫ম স্থানে রয়েছে। খবর প্রকাশের পরপরেই বিভিন্ন ইলেক্ট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়া ফলাও করে প্রচার করছে বিশ্ববিদ্যালয়টির ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সফলতার কাহিনী। মহামান্য রাস্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দলের নেতা বিশ্ববিদ্যালয়টির ভাইস-চ্যান্সেলর মহোদয়কে ফোনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

একটি সময় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়টি দক্ষিন-পূর্ব এশিয়ার সেরা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় নামে পরিচিতি পেলেও বিভিন্ন কারণে সেই খ্যাতি হারিয়ে ফেলে।

এক দশক আগে নাম সর্বস্ব থাকলেও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এখন পৃথিবীর অন্যতম সেরা কৃষি শিক্ষার পীঠস্থান। বিগত ২০২৪-২০২৫ সেশনের ভর্তি পরিক্ষায় বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের প্রায় ১২০০০ হাজার ভর্তিচ্ছু সহ দেশের প্রায় ৪৫০০০ হাজার ভর্তিচ্ছু এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য আবেদন করেন। তীব্র প্রতিযোগীতার অনলাইন ভর্তি পরিক্ষার মাধ্যমে ২০০০ দেশ-বিদেশের শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। এছাড়া পিএইডি,এম-ফিল সম্পন্ন করার জন্য বিশ্বের তাবৎ মেধাবীরা বাকৃবিকে রাখছেন শীর্ষে।

গত দশ বছরে অবিশ্বাস্য বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটেছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের। উন্নত আইন শৃংখলা পরিস্থিতি রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি, নেই কোন পুলিশ ক্যাম্প।

আবাসিক হল গুলোতে আছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষ, উচ্চ গতির ফ্রি ইন্টারনেট সেবা, এছাড়া আরো আছে অত্যাধুনিক থাকা-খাওয়ার সুযোগ সুবিধা।

ক্লাস রুমগুলো ডিজিটালাইজ করা হয়েছে। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ক্লাস রুমগুলোতে রয়েছে ভিডিও টিচিঙের সুবিধা। কৃষি ক্ষেত্রে বিশ্বের মেধাবী শিক্ষকরা দূর পরবাসে বসে ক্লাস নিয়ে থাকেন।
পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা এ ক্যাম্পাসের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। জব্বারের মোড়, কে.আর মার্কেটসহ পুরো ক্যাম্পাস যেন ঝা চকচকে। সবুজের সমারোহ তো আছেই, এটি যে প্রকৃতির সবুজ কন্যা নামে খ্যাত।

ক্যাম্পাসে রয়েছে বিশ্বের অন্যতম সমৃদ্ধ লাইব্রেরী। অনলাইনে এই লাইব্রেরীর বই পড়ার ব্যবস্থাও রয়েছে।

গবেষনা ও উদ্ভাবনের জন্য বাকৃবি আজ বিশ্বের কৃষি ক্ষেত্রে একটি পরিচিত নাম। ধান, গম, ভুট্টা সহ দরকারী ও অর্থকরী ফল ও ফসলের উচ্চ ফলনশীল জাত উদ্ভাবন করে চলছে বিশ্ববিদ্যালয়টির মেধাবী মানুষগুলো। এছাড়া, বিভিন্ন গবাদি পশুর মানোন্নয়ন, অধিক মৎস্য উৎপাদনের অত্যাধুনিক কৌশল, প্রানীর রোগ বালাই দমন ও নিয়ন্ত্রনে স্বল্প খরচের মেডিসিন উদ্ভাবন, কৃষি প্রকৌশলে নিত্যনতুন যন্ত্রপাতির উদ্ভাবন, কৃষি অর্থনীতির যুগান্তকারী তত্বের উদ্ভাবন বিশ্ববিদ্যালয়টিকে বিশ্বের দরবারে দিয়েছে অনন্য আসন।

এছাড়া, অনন্য গঠন শৈলীর দালান গুলোকে অত্যাধুনিক রুপ দেয়ায় ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য বেড়েছে সহস্রগুন। পাশ ঘেঁষে বয়ে যাওয়া ব্রম্মপুত্রনদের উপরে নির্মিত কাচের সেতুটি যেন ক্যাম্পাসের সার্বিক উন্নয়নেই প্রকাশ করে। নদের বিপরীত পাশে রয়েছে, জেনেটিক্স রিসার্চ এর জন্য অত্যাধুনিক ল্যাব ও বিশাল দৃস্টি নন্দন পার্ক। উল্লেখ্য রিসার্চ ল্যাবটি থেকে প্রতিবছরেই বিভিন্ন শষ্যের জেনেটিক কোড আবিস্কার করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ১২ টি ফসলের ডিএনএ ডিকোডিঙের পেটেন্ট নিয়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়…।।

সুদূর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে এখানে পড়তে আসা শিক্ষার্থী এলেক্স স্যামুয়েল বলেন, তার জীবনের লক্ষ ছিল বাকৃবিতে পড়া। এখানে পড়ার সুযোগ পেয়ে তিনি গর্বিত বলে জানান।

(নতুন বছর উপলক্ষে প্রথম আলোতে প্রকাশিত দশ বছর পরের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর একটি কলাম পড়ে অনুপ্রাণিত হয়ে লেখা। আমাদের প্রানপ্রিয় এই বিশ্ববিদ্যালয়টি একদিন এমন পর্যায়ে যাবেই যাবে। সেই কামনায়, হ্যাপি নিউ ইয়ার বাকৃবি)

লেখক: শিক্ষার্থী, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা, ১ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আরজে